দীপন বিশ্বাস, কক্সবাজার:

কক্সবাজারে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জায়গা দখল করে মাছ বাজারের গ্রোথ সেন্টার নির্মাণকে কেন্দ্র করে চরম উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। যে কোন মূহুর্তে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা করছেন এলাকাবাসী। কক্সবাজার সদর উপজেলাধীন ঈদগাঁও মাছ বাজারের গ্রোথ সেন্টার নির্মাণকে কেন্দ্র করে এই ঘটনা চলছে।

উক্ত এলাকার মৃত রবিন্দ্র কান্তি দে এর ছেলে বাবুল কান্তি দে জানান, তার পূর্ব পুরুষের স্বত্ব দখলীয় সাড়ে চার শতক জমিতে ঈদগাঁও মাছ বাজারের গ্রোথ সেন্টার নির্মাণের জন্য জেলা প্রশাসন জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এমন সংবাদে তিনি গত ২০২১সালের অক্টোবর মাসে জেলা প্রশাসন বরাবর লিখিত আপত্তি দায়ের করেন। আপত্তি দায়েরের পর অদ্যাবদি জেলা প্রশাসন এ ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি। এমনকি আপত্তি দায়েরের পর থেকে এ পর্যন্ত কোন খবরও রাখেননি।

গত সপ্তাহ খানেক আগে মাছ বাজারের গ্রোথ সেন্টার সেটটি পাকা স্থাপনার উদ্দ্যোগ গ্রহণ করলে তিনি ও তার পরিবার বাধা প্রদান করেন। এছাড়াও আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবি ব্যারিষ্টার আতিকুর রহমান কর্তৃক উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা, কক্সবাজার সদর. উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, কক্সবাজার, ঈদগাঁও আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সচিব, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ঢাকা কে চলতি সপ্তাহে লিগ্যাল নোটিশ প্রেরণ করেছেন। তারা গত ২৬ মে এ ব্যাপারে অবগত হয়েছেন।

তিনি আরও জানান, জেলা প্রশাসন জোর করে আমার স্বত্ব দখলীয় জমি দখলের জন্য অবৈধভাবে পাঁয়াতারা চালাচ্ছেন। আমার জমিটুকু পরিচিহ্নিত করে আমাকে বুঝিয়ে দিয়ে, তারা গ্রোথ সেন্টার বা যে কোন স্থাপনা করুক না কেন এতে আমার কোন আপত্তি নেই। অযথা উত্তেজনা ছড়ানোর চেষ্টা করছেন।

এ ব্যাপারে নাম প্রকাশ না করার স্বর্তে জেলা প্রশাসনের এক কর্মকর্তা বলেন, সরকার চাইলে যে কোন জমি নিতে পারেন। তবে ড্রিমারগ্রেশন করতে হবে। এজন্য জমি মালিককে তার পাওনা বুঝিয়ে দিতে হবে।