মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলন বেগবান করতে, আইনজীবীদের ন্যায্য অধিকার নিশ্চিত করতে, দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে, সর্বোপরি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন আরো তরান্বিত করতে আগামী ২৫ মে অনুষ্ঠিতব্য বাংলাদেশ বার কাউন্সিল নির্বাচনে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলের মনোনীত প্রার্থীদের ভোট দিতে বিজ্ঞ আইনজীবীদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন-বিএনপি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান এডভোকেট আহম্মদ আজম খান।

রোববার ৮ মে কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতি ভবনে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম কক্সবাজার বার ইউনিটের সভাপতি এডভোকেট মোস্তাক আহমদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল মনোনীত প্রার্থীদের সমর্থনে আয়োজিত এক প্রতিনিধি সভায় তিনি বিজ্ঞ আইনজীবীদের প্রতি এ আহবান জানান।

জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম আহবায়ক এডভোকেট আহম্মদ আজম খান আরো বলেন, আইনজীবীদের রয়েছে স্বর্ণালী ইতিহাস। তাই দুঃশাসন থেকে জাতিকে মুক্তি দেওয়ার আন্দোলনে আইনজীবীদের সামনে কাতারে থেকে নেতৃত্ব দিতে হবে।

বার কাউন্সিল নির্বাচনে ‘সি’ অঞ্চলের প্রধান নির্বাচন সমন্বয়কারী এডভোকেট আহম্মদ আজম খান আরো বলেন, রাত যতই গভীর হউক, পূর্বাকাশে সকালের সূর্য উদিত হবেই। এটা চিরন্তন সত্য। একইভাবে অবৈধ সরকারের দুঃশাসনকাল যতই দীর্ঘ হউক না কেন, এ দুঃশাসনের একদিন অবসান ঘটিয়ে জাতি গণতন্ত্রের মুখ দেখবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে, বিএনপি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি ও আইনজীবী ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সদস্য ব্যারিস্টার মীর মোহাম্মদ হেলাল উদ্দীন বলেন, দেশের সকল গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান সরকার ধ্বংস করে দিয়েছে। সর্বশেষ সুপ্রীম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে রাষ্ট্রীয় শক্তির অপব্যবহার করে পুলিশ দিয়ে, মাস্তান দিয়ে ভোট ডাকাতি করে দেশের সর্বোচ্চ আদালতকেও কলুষিত করেছে সরকার। এর যথাযথ প্রতিবাদ ও বিচার পেতে হলে বার কাউন্সিল নির্বাচনে নীল প্যানেলের প্রার্থীদের ভোট দিয়ে নির্বাচিত করার জন্য বিজ্ঞ আইনজীবীদের প্রতি তিনি উদাত্ত আহবান জানান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে, সুপ্রীম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাহী কমিটির নির্বাচিত সদস্য (২০২২-২০২৩) ও কক্সবাজারের ঈদগাহ এর কৃতি সন্তান এডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, দেশে গণতন্ত্র এখন লাইফ সার্পোটে রয়েছে। এ অবস্থায় সর্বক্ষেত্রে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনার জন্য নীল প্যানেলের প্রার্থীদের ভোট দিয়ে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলে সৎ, যোগ্য ও বলিষ্ঠ নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে হবে। এডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা ও আইনজীবীদের অধিকার সুরক্ষায় এর বিকল্প নেই।

আইনজীবী ফোরাম কক্সবাজার বার ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট সিরাজুল ইসলাম-৪ এর সঞ্চালনায় সভায় অন্যান্যের মধ্যে কক্সবাজার জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক পিপি এডভোকেট শামীম আরা স্বপ্না, আইনজীবী ফোরাম এর কেন্দ্রীয় সদস্য ও কক্সবাজারের সন্তান মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন সিকদার, কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এডভোকেট আবুল কালাম ছিদ্দিকী, কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এডভোকেট মোঃ ছৈয়দ আলম, কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মোহাম্মদ তাওহীদুল আনোয়ার, ল’ইয়ার্স কাউন্সিল কক্সবাজার বার ইউনিটের সভাপতি এডভোকেট ইব্রাহিম খলিল, এডভোকেট আবদুর রহিম, এডভোকেট খোরশেদ আলম ভুলু প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে- কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির ৪ বারের সাবেক সভাপতি এডভোকেট শাহজালাল চৌধুরী, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট সেলিম উল্লাহ, কক্সবাজার আইনজীবী সমিতির সিনিয়র সহ সভাপতি এডভোকেট আবু তাহের, সাবেক স্পেশাল পিপি এডভোকেট শাহাবুদ্দীন, ল’ইয়ার্স কাউন্সিল কক্সবাজার বার ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট জাফর উল্লাহ ইসলামাবাদী সহ শতাধিক আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলে সাধারণ আসনের প্রার্থীরা হলেন-এডভোকেট এ.জে মোহাম্মদ আলী (ব্যালটে ক্রমিক নম্বর-৩), ব্যারিস্টার আবদুল্লাহ আল মামুন (ব্যালটে ক্রমিক নম্বর-৫), ব্যারিস্টার এ.এম মাহবুব উদ্দিন খোকন (ব্যালটে ক্রমিক নম্বর-৬), এডভোকেট জয়নুল আবেদীন (ব্যালটে ক্রমিক নম্বর-১১), এডভোকেট মোঃ আবদুল মতিন (ব্যালটে ক্রমিক নম্বর-১৯), এডভোকেট মোঃ জসীম উদ্দীন সরকার (ব্যালটে ক্রমিক নম্বর-২৩) এবং ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল (ব্যালটে ক্রমিক নম্বর-২৮)। সি গ্রুপের প্রার্থী (কক্সবাজার সহ) এডভোকেট এ.এস.এম বদরুল আনোয়ার (ব্যালটে ক্রমিক নম্বর-২)।

প্রসঙ্গত, আগামী ২৫ মে অনুষ্ঠিতব্য বাংলাদেশ বার কাউন্সিল নির্বাচনে প্রত্যেক আইনজীবী ভোটার সাধারণ আসনে ৭ টি এবং গ্রুপ আসনে ১ টি সহ মোট ৮ টি ভোট দিতে পারবেন।

 
  
%d bloggers like this: