সাজন বড়ুয়া সাজু :

ইয়াবা বিক্রয়েয়র সময় ইয়াবাসহ দুই মাদক কারবারিকে পুলিশে দিলন খুনিয়াপালং ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল হক।

বুধবার (২০ এপ্রিল) দুপুর ২ টার দিকে খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের সামনে দুই মাদক কারবারি দিক বেদিক ছোটাছুটি করতে দেখা যায়। এমন সময় সিসিটিভি ফুটেজের তাঁদের দেখতে পেয়ে খুনিয়া পালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল হক, পরিষদের চৌকিদারদের দিয়ে সন্দেহভাজন মোটরসাইকেল এবং এক আরোহীকে ডেকে নিয়ে আসেন।

পরে জিজ্ঞাসাবাদে মোটরসাইকেল আরোহীকে স্বীকার করে তার আরেক বন্ধু ইয়াবার আনার জন্য গোপনে এক জায়গায় গিয়েছে।

সবকিছু বিবেচনা করে খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল হক রামু থানার ওসি কে বিষয়টি অবগত করেন। রামু থানার একটি পুলিশ টিম ইউনিয়ন পরিষদে এসে সন্দেহভাজন ব্যক্তিদেরকে পুলিশের কাছে ইয়াবা সোপর্দ করেন।

এ সময় দুই মাদক কারবারিদের কাছ থেকে ২হাজার পিস ইয়াবা ও ১টি মোটরসাইকেল সহ গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যান।

গ্রেফতারকৃত এক মাদক কারবারি হলেন খাগড়াছড়ি এলাকার মামুন ( ২২) ।

এই বিষয়ে খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল হক বলেন, মাদকের করাল গ্রাস থেকে যুব সমাজক রক্ষা পেতে হলে অভিভাবকদের আগে সচেতন হতে হবে। প্রথমে নিজের ঘরকে মাদক মুক্ত করতে হবে। আর এটা সম্ভব হলে সমাজ, জাতি ও দেশ মাদক মুক্ত হবে। মাদক নির্মূলে এটাই হলো আমাদের প্রথম করনীয় কাজ। মাদক সেবী সৃষ্টি না হলে মাদক ব্যবসায়ীরা এমনিতেই ধ্বংস হয়ে যাবে।

 
  
%d bloggers like this: