মহেশখালী প্রতিনিধি:

মহেশখালী উপজেলার হোয়ানকে আবুল ফজল নামের এক ব্যক্তিকে সাদা পোশাকধারী লোকজন তুলে নিয়ে গেছে বলে তার পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে। আবুল ফজল কালাগাজির পাড়ার মৃত জোনাব আলী মেম্বারের পুত্র।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে হোয়ানক কালাগাজির পাড়া বাজার থেকে তাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। কিন্তু বুধবার রাত পর্যন্ত তার কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। পুলিশ ও অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীও গ্রেফতার করেনি বলে জানানো হয়েছে। আবুল ফজলের সন্ধান না পাওয়ায় তার পরিবারের লোকজন চরম উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন। এই ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় সাধারণ ডায়রি করা হয়েছে।

আবুল ফজলের স্ত্রী নূর জাহান বেগম জানান, জায়গা সংক্রান্ত সমস্যা নিয়ে কাগজপত্র যাচাইয়ের জন্য কালাগাজির পাড়া বাজারের ফোরকানের চায়ের দোকানে বসে আলাপ করছিলো। এসময় দোকানে অন্তত ২০ মানুষ ছিলো। এক পর্যায়ে সাড়ে ৯টার দিকে পাঁচজনের একদল সাদার পোশাকধারী লোক ওই দোকানে প্রবেশ করে। কিছুক্ষণ পরই তারা আবুল ফজলকে আটকায়। এরমধ্যে দোকানের সামনে আসে একটি নাম্বারবিহীন নোহা ও একটি সিএনজি অটোরিক্সা। মুহূর্তের মধ্যে তারা আবুল ফজলকে নোহা তুলে নিয়ে উত্তর দিকে চলে যায়।

আবুল ফজলের স্ত্রী নূর জাহান বেগম বলেন, আমরা মনে করেছি তার বিরুদ্ধে যেহেতু মামলা রয়েছে, সে কারণে পুলিশ বা কোনো আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী গ্রেফতার করেছে। কিন্তু ২৪ ঘণ্টার অতিবাহিত হওয়ার পরও কোনো সন্ধান না পাওয়ায় আমরা দুশ্চিন্তায় পড়েছি। আমরা পুলিশ ও র‌্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীর সহযোগিতা কামনা করছি।

আবুল ফজলের বড় ভাই আবু শামা বলেন, কালাগাজির পাড়া বাজারের একটি জায়গা নিয়ে একটি বিরোধ রয়েছে। এই নিয়ে প্রতিপক্ষের সাথে বেশ কিছুদিন বাড়াবাড়ি চলছিলো। আবুল ফজলের সন্ধান না পাওয়ায় আমরা ওই বিষয়টিকে কেন্দ্র করে মূলত আমরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছি। আমরা তার সন্ধান প্রাপ্তির জন্য পুলিশের সহযোগিতা কামনা করছি।

এ বিষয়ে মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল হাই বলেন, আবুল ফজলের পরিবার থানায় জিডি করেছেন। তার ভিত্তিতে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে প্রত্যক্ষদর্শীদের সাথে কথা বলেছে। আমরা অনুসন্ধান চালাচ্ছি। ওনার বিরুদ্ধে হত্যাসহ কয়েকটি মামলা রয়েছে। সব কিছু সামনে রেখে আমরা তদন্ত চালাচ্ছি।

 
  
%d bloggers like this: