এম.এ আজিজ রাসেল:

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা বলেছেন, “বাংলাদেশের স্বাধীনতার সূর্যে্যর অভ্যূদয় হয়েছিল মুজিবনগর সরকার গঠনের মধ্য থেকে। মুজিবনগর সরকারের রাষ্ট্রপতি ছিলেন স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। স্বাধীন বাংলা সরকার প্রথমে দেশের অভ্যন্তরে, পরবর্তীতে প্রবাসে অবস্থান নিয়ে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা করে এবং আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে বাংলাদেশের স্বীকৃতি আদায়ের জন্য কাজ করে।” রোববার (১৭ এপ্রিল) হোটেল কক্স টুডে’র হলরুমে ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবস উপলক্ষ্যে কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

অ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা আরও বলেন, “বঙ্গবন্ধুর অত্যন্ত কাছের চারজন মুজিবনগর সরকারের ছিলেন। যার ফলে এই চারজনকে পরবর্তীতে জীবন দিতে হয়েছে। সাড়ে ৭ কোটি মানুষ যেভাবে ঐক্যবদ্ধভাবে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল সেসময়ও কিছু ষড়যন্ত্রকারী ছিলেন। স্বাধীনতার পরে নানা সময়ে ষড়যন্ত্র হয়েছে, এখনো হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথে তার কন্যার নেতৃত্বে বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়েছে, বাংলাদেশ আর পেছনে হাঁটবে না, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। অবশ্যই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ তৈরি হবে। এ জন্য একাত্তরের মতো আবারও সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। যাতে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অর্জিত বিজয় সুসংহত করাই আজকের দিনের অঙ্গীকার।”

জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাড. ফরিদুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান।

সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান চৌধুরীর সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমদ, জেলা আওয়ামী লীগের সহ—সভাপতি আজিজুর রহমান, রেজাউল করিম, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. রনজিত দাশ, আশেক উল্লাহ রফিক এমপি, জাফর আলম এমপি, কক্সবাজার উন্নয়ন কতৃর্পক্ষের চেয়ারম্যান লে. কর্নেল ফোরকান আহমদ, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. নজিবুল ইসলাম, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী ও মাতামুহুরীর সাংগঠনিক উপজেলার সাধারণ সম্পাদক মহসিন বাবুল।

এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ, পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান, ট্যুরিস্ট পুলিশের পুলিশ সুপার মো. জিল্লুর রহমান, জেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা শ্রাবস্তী রায়, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আমিন আল পারভেজ, বিভীষণ কান্তি দাশসহ বিভিন্ন সরকারি—বেসরকারি পদস্থ কর্মকতার্বৃন্দ।

 
  
%d bloggers like this: