স্পোর্টস ডেস্ক: সাকিব-লিটনের ফিফটিতে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে সাউথ আফ্রিকাকে ৩১৫ রানের টার্গেট দিয়েছে বাংলাদেশ। লিটন, সাকিব ও ইয়াসির আলি গড়েছেন হাফসেঞ্চুরি সিরিজ।

সেঞ্চুরিয়নে শুরু থেকেই রাবাদা-এনগিদির পেস আর বাউন্স শক্ত হাতে সামলেছেন তামিম-লিটন। পরে তামিমকে ৪১ রানে ফেরান ফেলুকায়ো।

অন্যপ্রান্তে ব্যাটিং দৃঢ়তায় হাফসেঞ্চুরি করেন লিটন। তবে টাইগার ওপেনারকে ইনিংস বড় করতে দেননি কেশাভ মহারাজ। সেঞ্চুরিয়নে দুই অঙ্কে পৌঁছাতে পারেননি মুশফিকুর রহিম। কেশভ মহারাজের দ্বিতীয় শিকার হয়ে ফিরেছেন ৯ রানে। ৫০ বলে চারটি চার ও দুই ছক্কায় হাফসেঞ্চুরি করেন সাকিব।

সাকিব রাব্বিকে সঙ্গে নিয়ে ভেঙেছেন তামিম-লিটনের রেকর্ড। ৭৭ রানে আউট হন সাকিব। রাব্বি সাজঘরে ফেরেন ৫০ করে। আর আফিফ থামেন ১৭-তে। মিরাজের ১৯ আর তাসকিনের সাত রানে ৭ উইকেটে ৩১৪ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর করে বাংলাদেশ।

পর পর ফিরলেন সাকিব-ইয়াসির

শত রানের জুটি ভেঙে সাকিব আল হাসানের বিদায়ের এক বল পর ফিরে গেলেন ইয়াসির আলি চৌধুরিও। লিটনের মতো এই মিডল অর্ডার ব‍্যাটসম‍্যানও বিদায় নিলেন পঞ্চাশ ছুঁয়েই।

শতক থেকে ২৩ রান দূরেই থামলেন সাকিব, ফিরলেন এলবিডব্লু হয়ে। ইয়াসিরের সঙ্গে তার জুটিতে উঠেছে ৮২ বলে ১১৫ রান।

পরের ওভারে ফিরেছেন ইয়াসিরও। রাবাদার শর্ট বলে শট খেলে ফেলেছিলেন আগেভাগেই। বল লেগেছে একেবারে ব্যাটের নিচের প্রান্তে, ফিরতি ক্যাচটা গেছে রাবাদার হাতেই।

বাংলাদেশ ৪২.১ ওভারে ২৪৩/৫।

সাকিবের অর্ধশতক, বাংলাদেশ ২০০/৩

ফিকোয়াকে লং-অফ দিয়ে মারা ছয়ে অর্ধশতক হয়ে গেল তার। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে সাকিবের এটি ৫০তম অর্ধশতক। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তৃতীয়। আদতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টানা তিন ওয়ানডেতেই অর্ধশতক করলেন সাকিব, যদিও সেটি প্রায় ৫ বছরের ব্যবধানে। সাকিবের মাইলফলকের পরের ওভারে ২০০ পূর্ণ হয়ে গেছে বাংলাদেশের।

বাংলাদেশ ৩৮.১ ওভারে ২০০/৩

মহারাজের দ্বিতীয় শিকার মুশফিক

শুরুটা ইতিবাচক হলেও মুশফিক ফিরলেন অসময়েই। সাকিবের সঙ্গে তাঁর জুটিতে উঠেছে ২১ রান, ২৮ রানের ব্যবধানে ৩ উইকেট হারাল বাংলাদেশ। ১২ বলে ৯ রান করেছেন মুশফিক।

বাংলাদেশ ২৮.২ ওভারে ১২৪/৩

অর্ধশতক করেই আউট লিটন, বাংলাদেশ ১০৪/২

ঠিক আগের বলেই অর্ধশত পূর্ণ করেছেন লিটন। পয়েন্টে ঠেলে ডাবলস নিয়ে মাইলফলকে পৌঁছেছিলেন লিটন। এ নিয়ে টানা তিনবার ৫০ বা এর বেশি রান করলেন লিটন। মহারাজের বলে জায়গা বানিয়ে খেলতে গিয়েছিলেন লিটন। লিটনও নাগাল পাননি, হারালেন স্টাম্প। প্রথম উইকেট পেলেন মহারাজ।

২৩ ওভারে বাংলাদেশ ১০৪/২

৭ বলে সাকিবের রান ৬। অন্যপ্রান্তে নেমেছেন মুশফিক।

তামিমকে ফেরালেন ফেলুকওয়ায়ো

আম্পায়ার বঙ্গানি ইয়েলে দিয়েছেন এলবিডব্লু। তামিম রিভিউ করেছিলেন, তবে বল ট্র্যাকিংয়ে তিনটি মানদণ্ডেই ছিল লাল। ৬৭ বলে ৪১ রান করে ফিরলেন তামিম, ভাঙল ৯৫ রানের উদ্বোধনী জুটি।

নিরাপদে অর্ধশত পূর্ণ বাংলাদেশের
কোনো উইকেট না হারিয়ে নিরাপদে অর্ধশত পূর্ণ করেছে বাংলাদেশ। মাত্র তৃতীয়বারের মতো উদ্বো‌ধনী জুটিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে অর্ধ শতক রান করেছে বাংলাদেশ।

১৬ ওভারে বাংলাদেশ ৫৪/০

৫১ বলে তামিমের রান ২৭। ৪৫ বলে লিটনের রান ২৩।

এমনিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ উদ্বোধনী জুটিটি ১৫৪ রানে, ২০১৫ সালে চট্টগ্রামে সেটি গড়েছিলেন সৌম্য সরকার ও তামিম ইকবাল।

তবে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে তাদের বিপক্ষে প্রথম উইকেটে সর্বোচ্চ জুটিটি ৪৬ রানের। ২০০৮ সালে বেনোনিতে সে জুটিতেও ছিলেন তামিম, তাঁর সঙ্গী ছিলেন ইমরুল কায়েস।

তামিম-লিটনের সাবধানী শুরু

উইকেটে ঘাসের ছোঁয়া আছে, স্বাভাবিকভাবেই আছে বাড়তি বাউন্সও। শুরুতে দক্ষিণ আফ্রিকা পেসা্দের সামনে কঠিন পরীক্ষাই অপেক্ষা করছে বাংলাদেশের দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের জন্য।

টস হেরে ব‍্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ ইনিংসের শুরুতে সাবধানী। কাগিসো রাবাদা ও লুঙ্গি এনগিডির পেস বোলিং দেখেশুনে খেলছেন দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও লিটন দাস।

৭ ওভারে বাংলাদেশ ২৭/০

২২ বলে তামিমের রান ১৩। ২০ বলে লিটনের রান ১৩।

টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

সেঞ্চুরিয়নে টসে জিতেছেন দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক টেম্বা বাভুমা। ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

বাংলাদেশের একাদশে টিকে গেছেন ইয়াসির। সবশেষ সিরিজে খেলা দলে নেই কোনো পরিবর্তন।

দক্ষিণ আফ্রিকা দলে নেই কুইন্টন ডি কক। ডি ককের বদলে আজ উইকেটকিপিংয়ের দায়িত্ব সামলাবেন কাইল ভেরেইনা। একাদশে ফিরেছেন পেসার কাগিসো রাবাদা।

সাউথ আফ্রিকা-বাংলাদেশের প্রথম ওয়ানডে টস হেরে ব্যাটিং পেয়েছে বাংলাদেশ। দুই যুগের আক্ষেপ ঘুচাতে মরিয়া টাইগাররা। পছন্দের ফরম্যাটে সাম্প্রতিক পারফর্মেন্সে আত্মবিশ্বাসী তামিম ইকবাল। অন্যদিকে, সবশেষ সিরিজে ভারতকে হারালেও বাংলাদেশকে হালকাভাবে নিচ্ছে না স্বাগতিকেরা, জয় দিয়ে শুরুর লক্ষ্য টেম্বা বাভুমার। সেঞ্চুরিয়নে ম্যাচ শুরু বাংলাদেশ সময় বিকেল পাঁচটায়।

সাউথ আফ্রিকা-বাংলাদেশের প্রথম ওয়ানডে আজ। দুই যুগের আক্ষেপ ঘুচাতে মরিয়া টাইগাররা। পছন্দের ফরম্যাটে সাম্প্রতিক পারফর্মেন্সে আত্মবিশ্বাসী তামিম ইকবাল। অন্যদিকে, সবশেষ সিরিজে ভারতকে হারালেও বাংলাদেশকে হালকাভাবে নিচ্ছে না স্বাগতিকেরা, জয় দিয়ে শুরুর লক্ষ্য টেম্বা বাভুমার। সেঞ্চুরিয়নে ম্যাচ শুরু বাংলাদেশ সময় বিকেল পাঁচটায়।

সাউথ আফ্রিকা ওডিআই র‍্যাংকিংয়ের পাঁচে, সাতে বাংলাদেশ। তিন ম্যাচ সিরিজ আইসিসি সুপার লিগের অংশ, যেখানে টাইগারদের অবস্থান টেবিলের চূড়ায় দশে প্রোটিয়ারা।

সেঞ্চুরিয়নের সুপারস্পোর্ট পার্কে, প্রথম ওডিআই। রঙিন পোশাকের ক্রিকেটে এই ভেন্যুতে প্রখমবার নামবে বাংলাদেশ। বেশিরভাগ অংশে সবুজ গ্যালারি, খোলা মাঠে বাতাসের প্রভাব থাকে। আর্লি মুভমেন্ট ভোগাতে পারে টাইগার ব্যাটারদের।

সাউথ আফ্রিকায় প্রথম জয়ের খোঁজে তামিমের দল, পছন্দের ফরম্যাটে দলীয় ভারসাম্য মূল শক্তি। ডমিঙ্গোর কোচিং স্টাফে ডোনাল্ড-মরকেলের অন্তর্ভূক্তি প্রস্তুতিতে যোগ করেছে ভিন্নমাত্রা।

ভিন্ন কন্ডিশন হলেও সবশেষ আফগানিস্তানের বিপক্ষে হোম সিরিজে যে কম্বিনেশন ছিলো, সেটা নিয়ে খেলার সম্ভাবনা বেশি। তিন পেইসার আর স্পিনে সাকিব-মিরাজকে নিয়ে বোলিং অ্যাটাক।

বাংলাদেশের ওডিআই অধিনায়ক তামিম ইকবাল বলেন, সাউথ আফ্রিকা, পূর্ণ শক্তি দল নিয়েই খেলছে ওডিআই সিরিজে। ম্যাচ উইনারের অভাব নেই প্রোটিয়াদের। নিজ ডেরায় ফেভারিট হলেও বিপজ্জনক বাংলাদেশকে নিয়ে সতর্ক টেম্বা বাভুমা। ভালো শুরু চান স্বাগতিক অধিনায়ক।

সাউথ আফ্রিকা ওডিআই অধিনায়ক টেম্বা বাভুমা বলেন, বাংলাদেশের হয়তো ভারতের মতো বড় নামের ক্রিকেটার নেই। তবে ম্যাচ উইনার আছে। এখানকার কন্ডিশন কাজে লাগানোর মতো ভালো পেইসার আছে। ব্যাটারও আছে যারা শর্ট বল ভালো খেলে। আমরা তাদের মোটেও হালকাভাবে নিচ্ছি না। জিততে হলে আমাদের ভালো ক্রিকেট খেলতে হবে।

দুই দলের ২২ মুখোমুখিতে সাউথ ১৭ জয় আফ্রিকার, বাংলাদেশ জিতেছে ৪ ম্যাচ। সবশেষ সাক্ষাতে অবশ্য সাকিব-মুস্তাফিজরাই সফল, ওই স্মৃতি হতে পারে বাড়তি প্রেরণা।

একাদশ
বাংলাদেশ: তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), ইয়াসির আলী, মাহমুদুল্লাহ, আফিফ হোসেন, মেহেদি হাসান মিরাজ, তাসকিন আহমেদ, শরিফুল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান।

দক্ষিণ আফ্রিকা: কাইল ভেরেইন (উইকেটরক্ষক), জনেমান মালান, টেম্বা বাভুমা (অধিনায়ক), এইডেন মার্করাম, রাসি ভ্যান ডার ডুসেন, ডেভিড মিলার, অ্যান্ডিল ফেহলুকওয়ে, ডোয়াইন প্রিটোরিয়াস, কাগিসো রাবাদা, জন, লুঙ্গি এনগিদি।

 
  
%d bloggers like this: