মোঃ নিজাম উদ্দিন, চকরিয়া:
চকরিয়া উপজেলার ডুলাহাজারায় ফাঁকাগুলি বর্ষণ করে কলেজ ছাত্রকে জিম্মি, জেলে পরিবারের বসতবাড়ী ভাঙচুর লুটপাট ও নারীর শ্লীলতাহানির ঘটনা ঘটেছে।
মঙ্গলবার দিবাগত রাত ২টার দিকে ডুলাহাজারা ইউনিয়নের শান্তিরঘাট নামক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানায়, গভীর রাতে পরপর দুটি গুলির শব্দে ঘুম ভেঙে যায়। আর্তচিৎকার ও বসতবাড়ী ভাঙচুরের বিকট শব্দে সবার মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।
নেজাম উদ্দিন নামের এলাকার যুবক জানান, ভাঙচুর ও একাধিক গুলির শব্দে ৯৯৯ -এর জরুরি সেবায় ফোন দেন তিনি। তাৎক্ষণিক কলটি কনফারেন্সে চকরিয়া থানার সাথে সংযোগ দেয়া হয়। পরে ঘটনার এক ঘন্টা পর পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। ওসময় শান্তিরঘাট এলাকার মৃত নগরবাসী দাশের পুত্র মাদব দাশের ঘরে কান্নার রূল পড়ে। তার টিনসেট বেড়ার বসতঘরটি ভেঙে মাটির সাথে লুটিয়ে দেয়।
এ ঘটনায় আহত হয়েছে বাড়ির মালিক মাদব দাশের ছেলে কক্সবাজার সিটি কলেজের ১ম বর্ষের ছাত্র জেকি দাশ (২২) ও তার বোন সুষ্মিতা দাশ (১৬)। তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
মাদব দাশ জানান, পার্শ্ববর্তী টুকুরাম দাশের ছেলে স্বর্ণের দোকানদার রাঁধাবাসী জোরপূর্বক তার ভিটেমাটি কেড়ে নেয়ার চেষ্টা চালায়। এনিয়ে আদালতে মামলা দায়ের করা হলে রাঁধাবাসীদের উপর নিষেধাজ্ঞা জারী করে আদালত। এ নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে রাঁধাবাসীর নেতৃত্বে জবরদখল চেষ্টায় বিগত ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ইং তারিখে সশস্ত্র সন্ত্রাসী দিয়ে হামলা চালায়। ওই ঘটনায় সি.আর- ১৫/২০২১ মামলাও চলমান আছে।
সর্বশেষ ঘটনায় মঙ্গলবার মধ্যরাতে আবারও অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী ভাড়া করে বসতবাড়িতে এসে ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে হামলা ও ভাঙচুর চালায়। মেয়ে সুশ্মিতা দাশ এতে বাধা দেয়ার চেষ্টা করলে বন্দুকের বাট দিয়ে আঘাত করে কাপড়-চোপড় টানা হেচড়া পূর্বক শ্লীলতাহানি করে। তাকে উদ্ধারের চেষ্টায় সুস্মিতার ভাই কলেজ ছাত্র জেকি দাশ এগিয়ে এলে, তাকে অস্ত্রের মুখে তোলে নিয়ে পার্শ্ববর্তী রেললাইনের কালভার্ট এলাকায় জিম্মি করে রাখে। সেই সময়ের মধ্যে তাদের বসত বাড়িটি ভেঙে মাটির সাথে লুটিয়ে দিয়েছে। এসময় ছিনিয়ে নিয়েছে নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার ও বসতবাড়ির মূল্যবান আসবাবপত্র।
বক্তব্য নিতে অভিযুক্ত ডুলাহাজারা বাজারের স্বর্ণের দোকানদার রাঁধাবাসী দাশের মোবাইলে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে সংযোগ পাওয়া যায়নি।
এবিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য রমজান আলী বলেন, শান্তিরঘাটের রাঁধাবাসী পাশের জেলে পরিবারদের উপর নির্যাতন চালাচ্ছে বলে শুনেছি। সদ্য ঘটিত নির্বাচনের আগে তাদের ভিটেমাটি কেড়ে নেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে বলেও জানতাম। তার বিরুদ্ধে আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও এমন ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। তবে এদিনের বিষয়ে অবগত করলেও ঢাকায় ছিলােন বলে জানান তিনি।
এ ব্যাপারে চকরিয়া থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ ওসমান গণি জানান, ডুলাহাজারা শান্তির ঘাটে ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ পাঠানো হয়। এখনো কেউ অভিযোগ দেননি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 
  
%d bloggers like this: