ছবির ক‍্যাপশন-ঠাকুর তলায় নৌকা প্রার্থীর সমর্থনে গনসংযোগ করছেন জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ।

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:
কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন ছোট মহেশখালী ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক বিজয়ের বিকল্প নেই। ৭ তারিখ বিপুল ভোটে নৌকা বিজয়ী হবে। নৌকা দেশের স্বাধীনতা এনেছে। উন্নয়ন তরান্বিত করতে ৭ তারিখ প্রমাণ হবে আপনারা কি উন্নয়ন চান না চাননা। আওয়ামী লীগ উন্নয়ন মূখী রাজনীতিতে বিশ্বাসী। এই উন্নয়নের সামিল থাকতে আপনাদের নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থীকে বিজয়ী করতে হবে। আপনারা শেখ হাসিনাকে সম্মানিত করুন আপনারা সম্মানিত হবেন। আওয়ামী লীগে বিশ্বাসঘাতকের স্থান নেই। যারা নির্বাচন আসলেই আওয়ামী লীগের বিরোধীতা করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা ইতিমধ্যে গ্রহণ করা হয়েছে। তাদের স্থায়ীভাবে বহিষ্কার এর জন্য কেন্দ্রের সুপারিশ পাঠানো হয়েছে। যারা দলের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন তারা কোনভাবেই রেহাই পাবেনা। শেখ হাসিনা যাকে মনোনয়ন দিয়েছেন তিনি আমাদের প্রার্থী। তিনি গতকাল ছোট মহেশখালী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের কর্মী সভায় প্রধান অতিথি’র বক্তব‍্যে একথা বলেন।
বিশেষ অতিথি’র বক্তব‍্যে কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান বলেন ৭ তারিখ বিজয়ের মালা নৌকা প্রতীকে উঠবে। আপনারাও ঐক‍্যবদ্ধ ভাবে কাজ করেন। বিশ্বাসঘাতকদের বর্জন করুন। বিশ্বাসঘাতক কোনদিন এলাকার মানুষের আস্থাভাজন হতে পারবে না।
সভায় বক্ত‍ব‍্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল হক মুকুল, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ব্রজগোপাল ঘোষ,উপপ্রচার সম্পাদক এহছানুল করিম, সাংস্কৃতিক সম্পাদক মাস্টার মাহবুবুল আলম, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক সাজেদুল করিম,মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মশরফা জান্নাতসহ ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।
স্থানীয় ভোটারদের মতে মাননীয় সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক এর নেতৃত্বে ছোট মহেশখালী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় এমপিওভুক্ত করন, নতুন প্রাইমারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপন। জালিয়া পাড়া প্রধান সড়ক কার্পেটিং করণ এমন কোন মসজিদ, মাদ্রাসা ও মক্তব নেই যেখানে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। তাই সাধারণ ভোটাররা একজোট হয়ে নৌকা প্রতীকের পক্ষে কাজ করতে চায়। সরকার দলীয় প্রার্থীকে ভোট না দিয়ে আমরা নিজের পায়ে কুড়াল মারতে পারি না। এই ইউনিয়নটি উন্নয়নে অনেক এগিয়ে গেছে। আমাদের একটি ভুল সিদ্ধান্ত সর্বনাশ ডেকে আনতে পারে।
৪ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা মাস্টার এলাহী বক্স বলেছেন আমরা উন্নয়নের রাজনীতি করি। বর্তমান সরকার আওয়ামী লীগের, সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগের, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগের না হলে আমরা সর্বক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়বো। সংসদ সদস্য এলাকার উন্নয়ন আন্তরিক বলেই আজ মহেশখালীতে দৃশ্যমান উন্নয়ন হয়েছে। আমরা এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে চাই। না হয় ভুল করলে আমাদের মাশুল গুনতে হবে। তাই শুধু আমি নই সমস্ত মানুষের প্রতি অনুরোধ আমরা ঐক্যবদ্ধ ভাবে এলাকার স্বার্থে এলাকার উন্নয়নে নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করি।
দুই নাম্বার ওয়ার্ডের বাসিন্দা সাইফুল ইসলাম রায়হান বলেন বিগত ৮ বছর ছোট মহেশখালীতে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। যা অতীতে হয়নি। আমরা আরো উন্নয়ন চাই। তাই নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সম্মানিত করতে চাই। ইতিমধ্যে মহেশখালীতে ৩৪ টি মেগা প্রকল্প চলমান রয়েছে। আমরা স্থানীয় সরকার নির্বাচনে যোগ্যপ্রার্থী মাস্টার এনামুল করিমকে বিজয়ী করে এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আরো উন্নয়ন ও রাস্তাঘাটের উন্নয়ন ত্বরান্বিত করতে চাই।
আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মাস্টার এনামুল করিম বলেন আমাকে একবার সুযোগ দিন, আমি এলাকার যেকোন সমস্যার সমাধান ও উন্নয়নে আপনাদের সাথে কাজ করে যাব। মাননীয় সংসদ সদস্যের নেতৃত্বে ছোট মহেশখালী আরো এগিয়ে নিতে চাই। তাই ৭ তারিখ নৌকা প্রতীকে একটি করে ভোট দিয়ে প্রমাণ করুন আমরা সবাই উন্নয়নের পক্ষে।
সভা শেষে ঠাকুর তলাসহ বিভিন্ন এলাকায় জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ নৌকা প্রতীকের সমর্থনে গনসংযোগ করেন।

 
  
%d bloggers like this: