নিজস্ব প্রতিবেদক
কোস্ট ফাউন্ডেশনের প্রকল্প সমাপনী সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
রবিবার (৩০ জানুয়ারি) উখিয়া উপজেলা হলরুমে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কামরুন্নেছা বেবি।
তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি স্থানীয় জনগোষ্ঠীদের সহযোগিতা ও প্রকল্পে সম্পৃক্ততা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। পরবর্তী প্রকল্পের ক্ষেত্রে উখিয়া উপজেলার সকল ইউনিয়ন সমূহকে সম্পৃক্ত করে কর্মএলাকা বৃদ্ধির অনুরোধ করেন।
তিনি কোস্ট ফাউন্ডেশন এর নারীবান্ধব কর্মপরিবেশ এর প্রশংসা করেন এবং ভবিষ্যতে ও এ ধারা অব্যাহত রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।
কোস্ট ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা তাহরিমা আফরোজ টুম্পার সঞ্চালনায় সভায় প্রকল্পের অংশীজন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সমাজ সচেতন ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
উপজেলা উপসহকারী প্রকৈাশলী মোঃ আল আমিন বিশ্বাসের সভাপতিত্বে টিয়ার ফান্ডের আর্থিক সহায়তায় অনুষ্ঠিত সভায় উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা প্রসেনজিৎ তালুকদার বলেন, ‘‘স্থানীয় উন্নয়ন সংস্থা কোস্ট ফাউন্ডেশন বরাবরই উপকূলীয় এলাকার মানুষের জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করছে। তিনি এই প্রকল্পের কার্যক্রমগুলো দীর্ঘমেয়াদি করার অনুরোধ করেন।
প্রসেনজিৎ তালুকদার বলেন, ভবিষ্যতে দীর্ঘমেয়াদী প্রকল্প গ্রহণ করা হলে কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জন করতে সহজ হবে। তিনি স্থানীয়ভাবে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্লান্ট করার জন্য মতামত দেন। বর্জ্যকে সম্পদে পরিনত করার প্রতি তিনি জোর দেন।
উখিয়া উপজেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রুহুল আমিন ও প্রেস ক্লাব সভাপতি এস এম আনোয়ার বলেন, এই প্রকল্পের দ্বারা বাস্তবায়িত কার্যক্রম গুলো জনচাহিদা সম্পন্ন ছিল। কোভিড কালীন সময়ে স্থানীয় জনগোষ্ঠিকে সচেতন করার কারণে তারা করোনা প্রতিরোধে আরও সচেতন হবে বলে মনে করছেন। প্রকল্পের আওতায় স্থাপিত স্ট্রিট সোলার লাইট গুলো জনগনের দোড়গোড়ায় আলোর সংকট দূর করতে সহায়তা করবে বলে তিনি আশাবাদ প্রকাশ করেন।
তিনি আরো বলেন-স্থাাপিত লাইটগুলো নষ্ট হলে বা জরুরী মেরামতের প্রয়োজন হলে তার ব্যবস্থা যেন সংস্থা থেকে গ্রহণ করা হয় এ বিষয়ে দাবী জানান।
বালুখালী কাশেমিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সবুজ সেন বলেন- কোস্ট ফাউন্ডেশন সব সময় দুর্যোগপ্রবণ মানুষের পাশে দ্রুত পৌঁছায়। তিনি আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত রোহিঙ্গা ও স্থানীয় জনগোষ্ঠীর মাঝে শীতবস্ত্র বিতরনের ভূয়শী প্রশংসা করেন।
পাশাপাশি তিনি সড়কে স্থাপন করা স্ট্রিট সোলার লাইটগুলোর জন্য সাধারন মানুষ সহজে রাত্রিকালীন চলাচল করতে পারছে তা উল্লেখ করেন।
উখিয়া উপজেলা ইমাম সমিতির সভাপতি মাওলানা জাফর আলম বলেন- রোহিঙ্গা তরুণদের মাধ্যমে যাতে উগ্রতা ও সামাজিক দাঙ্গা না ছড়ায় সে লক্ষ্যে কোস্ট ফাউন্ডেশনকে প্রকল্প গ্রহনের অনুরোধ জানান এবং উখিয়ার যানযটের কারণে কোমলমতি শিক্ষার্র্থীরা তাদের প্রতিষ্ঠানে যেতে নানান দুর্ঘটনা ঘঠছে- এ জন্য তিনি সড়কে গতিরোধক বা ওভার ব্রিজ নিমার্ণের দাবি জানান।
কোস্ট ইউরোক টীম লিডার বলেন- প্রকল্পটি কার্যক্রম জনগনের কল্যানে ভূমিকা রাখতে পেরেছে বলে মনে করছি। আপনাদের সহযোগীতা ছিল বলে আজ প্রকল্পটি সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। আগামিতেও আপনাদের সহযোগিতা নিয়ে চলতে চাই।
সভাপতির বক্তব্যে উপসহকারী প্রকৌশলী, উখিয়া উপজেলা, মোঃ আল আমিন বিশ্বাস তার বক্তব্যে বলেন, ‘‘স্থানীয় জনগোষ্ঠীর উন্নয়নের লক্ষ্যে আর্থিক বরাদ্দ বৃদ্ধির দাবি জানান। বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য স্থায়ী পদক্ষেপ গ্রহণ করার পরামর্শ প্রদান করেন।
তিনি তার বক্তব্যে আরও বলেন, রোহিঙ্গা আগমনে পর থেকে এ এলাকার ভুগর্ভস্ত সুপেয় পানির স্তর প্রতিনিয়ত নিচে নেমে যাওয়ার কারণে খাবার পানির ব্যাপক সংকট দেখা দিয়েছে এ সংকট মেকাবেলায় কোস্ট ফাউন্ডেশনকে কাজ করার জন্য অনুরোধ করেন এবং সভার সমাপ্তি ঘোষনা করেন।”
সভা শেষে উপস্থিত সকলের মতামত গ্রহন করা হয় এবং কোস্ট ফাউন্ডেশন পরবর্তিতে যে সকল প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে সেসব প্রকল্পে গ্রহনকৃত মতামতের ভিত্তিতে পরিকল্পনা গ্রহণ করা হবে বলে কোস্ট ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে বলা হয়।
উক্ত সভায় কোস্ট পরিবারের পক্ষ থেকে রেজাউল করিম, জসিম উদ্দিন, মিজানুর রহমান, দিলীপ ভৌমিক, মোঃ জুলফিকার হোছাইন, মোঃ শাহজাহান এবং মিজানুর রহমান বাহাদুরসহ প্রকল্পের সহকর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, ২০২১ সালের ২২ মার্চ উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়নের বালুখালী এলাকায় ভয়াাবহ অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী ও স্থানীয়দের পূনর্বাসনে সহযোগিতা, সচেতনতা ও জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্যে ৬ মাস মেয়াদে টিয়ার ফান্ডের প্রকল্পটি গ্রহণ করে।

 
  
%d bloggers like this: