এম.এ আজিজ রাসেল :
কক্সবাজার জেলার ২১টি ইউনিয়নের মধ্যে কয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া সুষ্ঠুভাবে ভোট গ্রহণ করা হয়েছে। সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হয় বিকাল ৪টায়। সকাল থেকে ভোটারদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মত। স্বতঃস্ফূর্তভাবে মানুষ ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পেরেছে বলে জানা গেছে। খুরুশকুল ইউনিয়নে দুই সদস্যপ্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে আক্তারুজ্জামান (৩৫) নামে একজন মারা গেছেন। এ ছাড়া কমপক্ষে তিন পুলিশসহ ১০ জন আহত হয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় উপজেলার তেতৈয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।
কক্সবাজার সদর উপজেলাঃ
কক্সবাজার সদর উপজেলায় ৫টি ইউনিয়নের মধ্যে ৩টি নৌকার প্রার্থী জয় হয়েছে। স্বতন্ত্র একজন প্রার্থী জয় হয়েছে। স্থগিত রয়েছে ১টি ইউনিয়নের। সদরের ঝিলংজা ইউনিয়নে টিপু সুলতান (নৌকা), ভারুয়াখালীতে কামাল উদ্দিন (নৌকা), চৌফলদন্ডীতে মুজিবুর রহমান মুজিব (নৌকা) ও পিএমখালীতে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ আবদুল্লাহ (আনারস) চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়। এছাড়া খুরুশকুল ইউনিয়নের ফলাফল ঘোষণা স্থগিত রয়েছে।
উখিয়া উপজেলাঃ
উখিয়ায় ৩টি নৌকার ও একটি স্বতন্ত্র প্রার্থী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়। রাজা পালংয়ে জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী (নৌকা), রত্না পালংয়ে নুরুল হুদা (নৌকা), পালংখালীতে স্বতন্ত্র প্রার্থী এম গফুর উদ্দীন (ঘোড়া) ও জালিয়া পালংয়ে এসএম ছৈয়দ আলম (নৌকা) চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। হলদিয়া পালংয়ে একটি কেন্দ্রে ভোট স্থগিত থাকার কারণে ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি। তবে এই ইউনিয়নে এগিয়ে রয়েছে স্বতন্ত্র প্রার্থী ইমরুল কায়েস চৌধুরী (ঘোড়া)।
রামু উপজেলাঃ
প্রশাসনের কড়া নিরাপত্তায় বৃহস্পতিবার ভোরে কেন্দ্রে পৌঁছানো হয় ব্যালেট পেপার ও ব্যালেট বাক্স। সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণ ভাবে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করার জন্য নির্বাচন কমিশন এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন বলে জানান, উপজেলা নির্বাচন অফিসার। গতকাল বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) সকাল ৮ টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। ভোট কেন্দ্রের বাইরে কয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটলেও তা ভোটারদের মাঝে কোন প্রভাব ফেলতে পারেনি। বৃহস্পবিার রাতে রামু উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে নির্বাচনে ফলাফল ঘোষনা সম্পন্ন করেন উপজেলা নির্বাচন অফিসার মাহফুজুল ইসলাম সহ রিটার্নিং অফিসারা।
রামুতে নির্বাচনী ফলাফলে বেসরকারি ভাবে জানা যায়, ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বঞ্চিত সাবেক চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভূট্টো (আনারস) ৬৩৪৯ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বি আওয়ামী লীগ মনোনিত উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল হক চৌধুরী (নৌকা) ৪৭৩৩ ভোট পেয়েছেন। ঈদগড় ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমদ ভূট্টো (আনারস) ৪৯১৬ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বি আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি হাজী নুরুল আলম (নৌকা) ৩২৯৫ ভোট পেয়েছেন। বিজয়ী প্রার্থী ফিরোজ আহমদ ভূট্টো রামু উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম—সম্পাদক। গর্জনিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মুজিবুর রহমান বাবুল (নৌকা) ৪১৮৮ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বি প্রার্থী উপজেলা বিএনপি’র উপদেষ্টা ও সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম মৌলা চৌধুরী (মোটর সাইকেল) ২৯৭৭ ভোট পেয়েছেন। কচ্ছপিয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আবু মো. ইসমাঈল নোমান (আনারস) ৩৭২৬ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বি জামায়াত নেতা মো. তৈয়ব উল্লাহ (চশমা) ৩৪২৫ ভোট পেয়েছেন। কাউয়ারখোপ ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান শামশুল আলম (মোটর সাইকেল) ২৭৭৭ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বি আওয়ামী লীগ সমর্থিত উপজেলা যুবলীগের সহ—সভাপতি ওসমান সরওয়ার মামুন (নৌকা) ২৭৫০ ভোট পেয়েছেন। জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান কামাল শামশুদ্দিন আহমেদ প্রিন্স (নৌকা) ৪৫৬৫ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বি স্বতন্ত্র প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ—সভাপতি আবছার কামাল সিকদার (মোটর সাইকেল) ৩৪৪৭ ভোট পেয়েছেন। রাজারকুল ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মুফিজুর রহমান (ঘোড়া) ৫৭৬৬ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বি আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি সরওয়ার কামাল সোহেল (নৌকা) ৩৫৪৭ ভোট পেয়েছেন। দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী ইউনিয়ন মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খোদেস্তা বেগম রীনা (নৌকা) ৬০০৫ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বি স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মো. ইউনুচ ভূট্টো (টেবিল ফ্যান) ৩৪১৭ ভোট পেয়েছেন। চাকমারকুল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম সিকদার (নৌকা) ৩৯৫১ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বি স্বতন্ত্র প্রার্থী ব্যবসায়ী নুরুল আলম (আনারস) ৩৬৭৪ ভোট পেয়েছেন। রশিদনগর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান এম ডি শাহ আলম (আনারস) ৩৯৯৯ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বি বিএনপি জামায়াত সমর্থিত মো. হান্নান সিদ্দিকী (মোটর সাইকেল) ৩৯২৪ ভোট পেয়েছেন। খুনিয়াপালং ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আবদুল হক (চশমা) অল্প ভোটে বর্তমান চেয়ারম্যান আবদুল মাবুদ (নৌকা) কে হারিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমা জানান, রামুর এগার ইউনিয়নের নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভাবে সম্পন্ন হয়েছে। উপজেলার ১০০টি কেন্দ্রে সুন্দর ব্যবস্থাপনা ও শৃংখলার মধ্যদিয়ে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। প্রশাসনিক কর্মকর্তারা আন্তরিকতা ও কঠোর নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেছে। কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনার আশংকার কথা শুনার সাথে সাথেই, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে মোবাইল স্ট্রাইকিং ফোর্স ছুটে গিছে। তিনি বলেন, কিছুটা গুজব ছড়ানোর চেষ্টা করা হয়েছিলো। কোথাও কোথাও অপ্রীতিকর ঘটনার কথা জানিয়েছিলো, প্রার্থীদের কয়েকজন। কিন্তু আমরা সাথে সাথে ভোট কেন্দ্রে ছুটে গিয়ে আশংকাজনক কোন কিছু দেখিনি। তিনি নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ভাবে সম্পন্ন করতে পারায়, সকল প্রার্থী ও ভোটারদের ধন্যবাদ জানান। কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ বলেন, কয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া অবাধ, সুষ্ঠ, শান্তিপূর্ণ পরিবেশে গ্রহনযোগ্য নির্বাচন হয়েছে। নির্বাচনের মাঠে জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট, নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি ও আনসার সদস্যরা সমন্বিতভাবে কাজ করে।