আব্দুস সালাম,টেকনাফ:
কক্সবাজার থেকে প্রকাশিত দৈনিক সাগরদেশ পত্রিকার টেকনাফ প্রতিনিধি ও সাংবাদিক ইউনিটির প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এম আমান উল্লাহ আমানের বিরুদ্ধে টেকনাফ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম কতৃক দায়েরকৃত হয়রানিমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
আজ মঙ্গলবার (৮ নভেম্বর) বিকাল ৩টায় টেকনাফ বাসস্টেশন চত্বরে টেকনাফ সাংবাদিক ইউনিটি,বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম (বিএমএসএফ) উপজেলা শাখা,টেকনাফ পৌর প্রেসক্লাব, টিভি জার্নালিস্ট এস্যোসিয়েশন, উপকূলীয় সাংবাদিক ফোরাম, টেকনাফ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি ২০০৩ ব্যাচ, সওতুলহেরা সোসাইটির যৌথ উদ্যোগে এক বিশাল মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে টেকনাফ সাংবাদিক ইউনিটির সভাপতি সাইফুল ইসলাম সাইফীর সভাপতিত্বে পৌর প্রেসক্লাবের সভাপতি আব্দুস সালামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়।

এত বক্তব্য রাখেন,টেকনাফ সাংবাদিক ইউনিটির প্রধান উপদেষ্টা প্রবীণ সাংবাদিক হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম (বিএমএসএফ) উপজেলা শাখার সভাপতি ও প্রবীণ সাংবাদিক আবুল কালাম আজাদ, টিভি জার্নালিস্ট এস্যোসিয়েশনের আহবায়ক নুরতাজুল মোস্তফা শাহীনশাহ, সাংবাদিক ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক ও সাবরাং ইউপির ১নং ওয়ার্ড সদস্য মোহাম্মদ সেলিম সিআইপি, পৌর প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক আরাফাত সানী, বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম (বিএমএসএফ) উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ রাসেল, উপকূলীয় সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সদর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শাহ আলম, গ্রীণ এনভায়রন্টমেন্ট মুভমেন্ট টেকনাফ উপজেলার সাধারণ সম্পাদক নুরুল আমিন শিকদার,সাংবাদিক ইউনিটির সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, টেকনাফ পাইলট উচ্চবিদ্যালয় এসএসসি ২০০৩ ব্যাচের মোহাম্মদ মামুন, সওতুলহেরা সোসাইটির টেকনাফ উপজেলা শাখার সভাপতি মোহাম্মদ রিয়াদ, সচেতন নাগরিকের পক্ষে মোহাম্মদ হারুন প্রমূখ।
এসময় জাতীয়, আঞ্চলিক, স্থানীয় প্রিন্ট মিডিয়া, ইলেকট্রিক মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিক, পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এসএসসি ২০০৩ ব্যাচের সদস্য,সওতুলহেরা সোসাইটির সদস্যবৃন্দসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গরা উপস্থিত ছিলেন।

বক্তারা বলেন, ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে সাংবাদিক আমান উল্লাহকে মিথ্যা হয়রানিমূলক মামলা দিয়ে
বিভিন্ন অনিয়ম-দূর্নীতি, গ্রাহক হয়রানি, ঘুষ ছাড়া ফাইল নড়ে না, গ্রাহকদের সাথে দুরব্যবহার, গ্রাহকদের বিরুদ্ধে মামলা, মাত্রাতিরিক্ত লোড-শেডিং, মাত্রাতিরিক্ত ভূতুড়েবিল, ঘুষ নিয়ে ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সাকে চার্জ দেওয়ার ব্যবস্থা,সাইড কানেকশনসহ সর্বোপরি দুর্নীতিতে নিমজ্জিত টেকনাফ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম আবুল বাশার আজাদ। থানায় কেউ অভিযোগ দিলে যাচাই-বাচাই করার বিধান রয়েছে। কিন্তু পুলিশ কোন তদন্ত না করে ৭ নভেম্বর সকাল ১০ টায় সাংবাদিক আমান
উল্লাহকে আটক করে। টেকনাফ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম আবুল বাশার আজাদ বাদী হয়ে রাত ৮টা ৪৫ মিনিটের সময় একটি মামলা রুজু করেন। এরপর ৮ নভেম্বর দুপুরে তাকে আদালতে প্রেরণ করেন।

বক্তারা আরও বলেন, করোনাকালীন সময়ে সরকার বিদ্যুৎ বিল পরিশোধে বিলম্ব মাশুল মওকুফ করা হলেও বিভিন্ন ধরনের অজুহাতে দূনীতির মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা গ্রাহকদের কাছ থেকে আদায় করে আত্মসাৎ করেছেন। এসব বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের পাশাপাশি দুর্নীতি দমন কমিশনের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন। দূনীতি ও মামলাবাজ ডিজিএম আবুল বাশার আজাদকে আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে শাস্তিমূলক বদলি চাই। সাংবাদিক আমান উল্লাহ আমানের বিরুদ্ধে দায়েরকরা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও মুক্তির দাবী জানানো হয়। অন্যথায় আরও কঠোরতম কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে।