স্বৈরাচারী মনোভাব, স্বেচ্ছাচারিতা ও অনিয়মের অভিযোগ

বার্তা পরিবেশক
সার্বজনীন শ্রীশ্রী কৃষ্ণানন্দধাম কার্যনির্বাহী পরিষদের কতিপয় সদস্যের স্বৈরাচারী মনোভাব, স্বেচ্ছাচারিতা ও অনিয়মের অভিযোগে পদত্যাগ করেছেন দুই সদস্য। এরা হলেন-সার্বজনীন শ্রীশ্রী কৃষ্ণানন্দধাম কার্যনির্বাহী পরিষদের সহ-সাধারণ সম্পাদক প্রবীর কুমার পাল এবং সদস্য ডাঃ নারায়ন শর্মা। গত ১
নভেম্বর সার্বজনীন শ্রীশ্রী কৃষ্ণানন্দধাম কার্যনির্বাহী পরিষদের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক বরাবরে তারা এই পদত্যাগপত্র জমা দেন। পদত্যাগের কারণ হিসেবে তারা ১৩টি কারণ উল্লেখ করেছেন পদত্যাগপত্রে। এগুলোর মধ্যে
অন্যতম হলো-সার্বজনীন শ্রীশ্রী কৃষ্ণানন্দধাম’র গঠনতন্ত্র মোতাবেক পরিচালিত হচ্ছে না। প্রতিটি কর্মকান্ড কার্যনির্বাহী পরিষদের সভায় উপস্থাপন করা হয় না। গত ১০/৯/২০২১ইং তারিখ কার্যনির্বাহী পরিষদের সভায় এক সহ-সভাপতি কর্তৃক ডা: নারায়ন শর্মার পিতা-মাতার প্রতি অকাট্য ভাষায় গালি গালাজের সুবিচারও কামনা করা হয় উক্ত পদত্যাগপত্রে। এতে আরো উল্লেখ
করা হয়েছে, গত ১৬/৯/২০২১ইং তারিখ কার্যনির্বাহী পরিষদের ১১ জন সদস্যের যৌথ স্বাক্ষরের সুপারিশপত্রও সাধারণ সম্পাদক বরাবরে দাখিল করা হয়, কিন্তু তিনি তা গ্রহণ করেননি। যাহা স্বাক্ষরিত সকল সদস্যকে অবমাননা করা হয়েছে। সেহেতু উক্ত নেতৃত্বে স্বৈরাচারী শাসক হিসেবে সার্বজনীন শ্রীশ্রী কৃষ্ণানন্দধাম পরিষদের ইতিহাসে কালো অধ্যায় হিসেবে লিপিবদ্ধ থাকবে। পদত্যাগপত্রে উল্লেখ করা হয়, সার্বজনীন শ্রীশ্রী কৃষ্ণানন্দধামের সার্বজনীন শব্দটাকে কালীমা লেপন করে সনাতনী সমাজকে বিভাজনের দিকে কতিপয় সদস্য এগিয়ে নিচ্ছে।