বলরাম দাশ অনুপম:
একদিকে দখল অন্যদিকে উচ্ছেদ। এ যেন ইঁদুর-বিড়ালের খেলা। কক্সবাজার শহরের অভ্যন্তরীন সড়কের ফুটপাতগুলো নিয়ে এই খেলা চলছে। শহরের ফুটপাতগুলো চলে গেছে ভাসমান ব্যবসায়ীদের দখলে। শহরের গোলদিঘির পাড়, হাসপাতাল সড়ক, গুনগাছতলাসহ একাধিক এলাকায় গিয়ে এমন দৃশ্য দেখা গেছে। তাছাড়া ফুটপাতের অনেক জায়গা দখল করে গড়ে তোলা হয়েছে অবৈধ সিএনজি ষ্টেশনও। ফুটপাতগুলো দখল হয়ে যাওয়ায় পথচারীসহ সাধারণ লোকজনের চলাচলে মারাত্মক প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। সড়ক সংকুচিত হয়ে যাওয়ায় সব সময় লেগগে থাকছে চরম যানজট। এতে দুর্ভোগের শেষ নেই। শহরের হাসপাতাল সড়কের বাসিন্দা নঈমুল হক বলেন, ফুটপাত দখল করে রাখার কারণে আমরা চলাচল করতে চরম ভোগান্তির শিকার হয়। শুধু তাই নয়, অনেক সময় ফুটপাত দিয়ে চলাফেলা করতে না পেরে যানবাহনের কবলে পড়তে হয়। ভাসমান ব্যবসায়ীরা জানিয়য়েছেন, জীবিকার তাগিদে ফুটপাত দখল করে ব্যবসা করছেন তারা। হাসপাতাল সড়ক ও গুনগাছ তলার একাধিক ভাসমান ব্যবসায়ী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, আমরা প্রতিনিয়ত উচ্ছেদ আতংকে থাকি, তবুও কিছুই করার দেনয় জীবন চালনোর জন্য ফুটপাতে ব্যবসা করি। অন্যদিকে নানা অজুহাত দেখিয়ে শহরের হাসপাতাল সড়ক এলাকায় অবৈধভাবে প্রতিনিয়ত পাকিং করা হচ্ছে সিএনজি অটোরিক্সা। কক্সবাজার পৌরসভার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে শীঘ্রই ফুটপাত দখলমুক্ত করতে আবারো অভিযান চলবে। ফুটপাত দখলমুক্ত শহরে একটি সুশৃঙ্খল পরিবেশ নিশ্চিত করা হোক- এমনটি দাবি শহরবাসীর। কক্সবাজার পৌরসভার করভারভেন্সি পরিদর্শক কবির হোসাইন উচ্ছেদের পর আবারও ফুটপাত দখল হয়ে গেছে এমন কথা স্বীকার করে শীঘ্রই ফের অভিযান চালানোর কথা জানান।

 
  
%d bloggers like this: