এম.এ আজিজ রাসেল :
দিনভর নানা নাটকীয়তা। কখনো বাকবিতণ্ডা, আবার কখনো স্থাপনা উচ্ছেদ। চলে দফায় দফায় আলোচনাও। রোববার সকালে কক্সবাজার পৌরসভা সড়ক উন্নয়ন কাজের জন্য স্থাপনা উচ্ছেদ করতে গেলে এমন উত্তেজনাকর পরিস্থিতি ছিল শহরে টেকপাড়া মাঝেরঘাট এলাকায়।

জানা যায়, কক্সবাজার পৌরসভার তত্ত্বাবধানে বাঁকখালীর তীর ঘেষে কস্তুরাঘাট থেকে মাঝের ঘাট পর্যন্ত শহরের বিকল্প সড়ক নির্মাণ প্রকল্প চলমান রয়েছে। এই সড়কের কাজ শেষ হলে বদলে যাবে পুরো পর্যটন শহরের চিত্র। কমবে যানজটের ভোগান্তি। যোগাযোগ ব্যবস্থায় আসবে আমূল পরিবর্তন। কিন্তু মাঝের ঘাট এলাকায় সড়ক নির্মাণের জন্য জায়গা দিতে বললে ঘটে বিপত্তি।

জমির মালিকদের দাবি, তাঁদের জমি খতিয়ানভুক্ত। তাই ব্যক্তি মালিকানাধীন জমিতে বিনা নোটিশে ক্ষতিপূরন না দিয়ে স্থাপনা উচ্ছেদ করতে আসলে বাঁধা দেয় জমির মালিকেরা। এসময় উচ্ছেদ কার্যক্রমে অংশ নেওয়া কক্সবাজার পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে বাদানুবাদ হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আসে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

পরে ঘটনাস্থলে আসেন কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান ও প্রধান নির্বাহী একেএম তারিকুল আলম। তাঁরা উভয়ই জমির মালিকদের বুঝিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন।

কক্সবাজার পৌরসভার প্রধান নির্বাহী একেএম তারিকুল আলম, অন্যায়ভাবে কারও জায়গা নেওয়া হবে না। আলোচনার মাধ্যমে সবকিছু করা হবে। এই রাস্তা করা হচ্ছে জনস্বার্থে।

 
  
%d bloggers like this: