মোঃ কাউছার ঊদ্দীন শরীফ, ঈদগাঁওঃ

কক্সবাজারের ঈদগাঁও উপজেলার ইসলামাবাদে স্ত্রীর বিরুদ্ধে স্বামীকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার ২৯শে জুন দুপুরে বর্ণিত ইউনিয়নের আউলিয়াবাদ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ইসলামাবাদ ইউনিয়নের আউলিয়াবাদ এলাকার মৃত মোঃ হোসেনের ছেলে মোঃ ফরিদ দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করতেন।

তার স্ত্রী কুনছুমা আক্তার একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। এ বিষয় নিয়ে তাদের প্রায়ই পারিবারিক কলহ লেগে থাকত।

ঘটনার সময় ফরিদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে উপজেলার ঈদগাঁওয়ের হাসপাতালে নিয়ে যান।

এখানে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

ফরিদের ভাই সিরাজ বলেন, আমার ভাই ফরিদ আগে ব্যবসা করত এখন একটা দোকানে চাকরি করেন। সব সময় সে স্থায়ীভাবে বাড়িতে এসে বসবাস করেন। বাড়িতে আমার ভাইয়ের সঙ্গে কুনছুমার প্রায়ই ঝগড়া হতো।

কুনছুমা বিভিন্ন সময়ে আমার ভাইকে হত্যার হুমকি দিত। এ ঘটনার সময় আমি বাড়ীতে ছিলাম না খবর পেয়ে এসে দেখি রক্তের বন্যা। আমার ভাইকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে কুনছুমা।

তিনি আরও বলেন, কুনছুমার অত্যাচারে আমরা বাড়িতে থাকতে পারতাম না। ফরিদসহ আমরা তিন ভাই সেখানে বসবাস করছি। ঘটনার সময় ফরিদের চিৎকার শুনে এলাকার লোক জন এসে দেখে ফরিদ কে জবাই করে কুনছুমা পালিয়ে যায়।

কুনছুমাকে এলাকায় না পাওয়ার কারণে এ বিষয়ে তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

স্থানীয় অনেকে বলেন, ফরিদ খুবই ভালো মানুষ ছিল। তার সঙ্গে আমাদের এলাকার কোনো মানুষের কোনদিন ঝগড়া বিবাদ হয়নি।

কেন, কীভাবে এ ঘটনা ঘটল তা আমাদের বোধগম্য নয়। আমরা চাই পুলিশ ফরিদের হত্যার চেষ্টাকারীকে খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনুক।

ঈদগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মো. আব্দুল হালিম বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় ফরিদ কে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করা অস্ত্র দা উদ্ধার করা হয়েছে। পালাতক স্ত্রী কুনছুমা কে গ্রেফতারের চেষ্টায় অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

 
  
%d bloggers like this: