আবুল কালাম, চট্টগ্রাম :

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ( সিএমপি)র বন্দর থানার অধীনে বিশেষ অভিযান ও চেক পোষ্ট পরিচালনাকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বন্দর থানাধীন পশ্চিম নিমতলা পানামা টার্মিনাল সংলগ্ন খালপড় হতে আইনের সহিত সংঘাতে জড়িত শিশু মোঃ আবিদ হোসেন শ্রাবণ(১৭) কে চোরাই ১টি পুরাতন বাই সাইকেল, (যার মূল্য অনুমান- ৭,০০০ টাকা) সহ আটক করা হয়।

শনিবার (১৮ জুন)নগরীর বন্দর থানার অধীনে বিশেষ অভিযান ও চেক পোষ্ট পরিচালনাকালে তাকে আটক করা হয়।

পরবর্তীতে গ্রেফতার কৃত শিশু মোঃ আবিদ হোসেন শ্রাবণ এর প্রদত্ত তথ্য ও সনাক্ত মতে মোঃ আমানকে চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া থানাধীন শান্তিরহাটস্থ বুদপুরা বাজার সংলগ্ন বিসমিল্লাহ মোটরস নামীয় আমানের গ্যারেজের দোকান হতে ০১টি চোরাই Hero Hunk মোটর সাইকেল, যার চ্যাচিস নম্বর- PS1KCS233KJF00244 ইঞ্জিন নম্বর- KC13EFKGE00386, যাহা নাম্বার প্লেট বিহীন, উদ্ধার পূর্বক হাতে নাতে গ্রেফতার করা হয়।

পরবর্তীতে উভয়ের তথ্যমতে অভিযান পরিচালনা করে মোঃ সাজ্জাদ কে পটিয়া থানাধীন শান্তিরহাটস্থ বুদপুরা বাজার সংলগ্ন টিনুর থাই অ্যালুমিনিয়াম নামীয় তৈয়বের দোকানের সামনে হতে ০১টি নীল রংয়ের ১৫০ সি.সি Apache RTR নাম্বার প্লেট বিহীন মোটর সাইকেল, যার চ্যাসিস ও ইঞ্জিন নম্বর ঘষামাজা করা, সহ গ্রেফতার করা হয়।

পরবর্তীতে তাদের স্বীকারোক্তি ও দেখানো মতে চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া থানাধীন শান্তিরহাট বাজারস্থ কবির মার্কেট সংলগ্ন এস.আর মোটরস নামীয় সাজ্জাদ এর গ্যারেজ হতে ১) ০১টি কালো নীল রংয়ের ১৫০ সি.সি. নাম্বার প্লেট বিহীন Pulsar মোটর সাইকেল, যার চ্যাসিস নম্বর- MD2DHDKZZUCC23576 (সামান্য ঘষামাজা করা) ইঞ্জিন নম্বর- DKGBUC54675 ২) ০১টি লাল রংয়ের Apache বাইক, নাম্বার প্লেট বিহীন মোটর সাইকেল, যার ইঞ্জিন ও চ্যাসিস নম্বর ঘষামাজা করা ৩) ০১টি নাম্বার বিহীন লাল রংয়ের TVS Centra মোটর সাইকেল, যাহার চ্যাসিস নম্বর ঘষামাজা করা। ইঞ্জিন নম্বর- 152FMH11FU08899 ৪) ০১টি নাম্বার প্লেট বিহীন লাল কালো রংয়ের WALTON fusion মোটর সাইকেল,যার ইঞ্জিন নম্বর 156FMI11FU00872 চ্যাসিস নম্বর- WBFU1 2511F00872 ৫) ০১টি নাম্বার প্লেট বিহীন ম্যাট Pulsar মোটর সাইকেল, যার চ্যাসিস নম্বর ঘষামাঝা করা (ঢালাই করা)। ইঞ্জিন নম্বর- DHGBSA882815; উদ্ধারপূর্বক ইং ১৯-০৬-২০২২ তারিখ ০১.৪৫ ঘটিকায় জব্দ করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে গ্রেফতারকৃতরা বর্ণিত চোরাই বাইসাইকেল ও মোটর সাইকেল সমূহ বিভিন্ন জায়গা থেকে চুরি করে এবং চোরাই জানিয়া অভ্যাসগত ভাবে ক্রয়-বিক্রয় করার জন্য তাদের হেফাজতে রাখে মর্মে স্বীকার করে।

 
  
%d bloggers like this: