জালাল আহমদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি:
ষড়ঋতুর দেশ বাংলাদেশ। ঋতু বৈচিত্র্যময় এই দেশের মানুষের কাছে প্রতিটি ঋতুই গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিটি ঋতু আলাদা গুরুত্ব বহন করে।
আজ বাংলাবর্ষ-১৪২৯ এর বর্ষা ঋতু কে নানা আয়োজনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা বরণ করে নিয়েছেন।
বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের ধারক- বাহক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা প্রিয়জনকে কদম ফুল উপহার দিয়ে বর্ষা কে বরণ করে নিয়েছে। আজ সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের হাতে হাতে দেখা যায় কদম ফুল ।
অপর দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বর্ষা ঋতু কে বরণ করে নিতে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন।

(১)ঢাবির বর্ষা উৎসব:
বর্ষা উৎসব উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে আজ ১৫ জুন ২০২২ বুধবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র চত্বরে বর্ষা উৎসব- ১৪২৯ উদযাপিত হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এই উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। এতে সভাপতিত্ব করেন বিশিষ্ট নৃত্যশিল্পী, লেখক ও গবেষক অধ্যাপক ড. নিগার চৌধুরী। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বর্ষা উৎসব উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মানজার চৌধুরী সুইট।
উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বর্ষা ঋতুকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, এধরণের উৎসবের মাধ্যমে মানুষের মধ্যে অসাম্প্রদায়িক মানবিক মূল্যবোধ জাগ্রত হয় এবং সম্প্রীতির মেলবন্ধন রচিত হয়। বর্ষা মৌসুম বৃক্ষরোপণের জন্য একটি উপযুক্ত সময়। পরিবেশ সংরক্ষণে এই মৌসুমে পর্যাপ্ত বৃক্ষরোপণ করার জন্য উপাচার্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান।
অনুষ্ঠানে উপাচার্য শিশু শিক্ষার্থীদের মাঝে গাছের চারা বিতরণ করেন। উৎসবে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিল্পীরা যন্ত্র সংগীত, দলীয় নৃত্য, দলীয় সংগীত, একক সংগীত ও একক আবৃত্তি পরিবেশন করেন।

(২)ঢাবি সাংস্কৃতিক সংসদ এর ‘আষাঢ় পার্বন:

বর্ষা ঋতুকে বরণ করে নিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক সংসদের উদ্যোগে আজ ১৫ জুন ২০২২ বুধবার বিকাল সাড়ে পাঁচটায় ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে ‘আষাঢ় পার্বন-১৪২৯’ উৎসব উদযাপত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও দিনব্যাপী কারুশিল্প মেলার আয়োজন করা হয়। বিকেলে ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র মিলনায়তনে উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ প্রধান অতিথি এবং প্রখ্যাত নাট্য ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব জনাব ম হামিদ উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক সংসদের মডারেটর এবং গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সাবরিনা সুলতানা চৌধুরীর সভাপতিত্বে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুস, বিশিষ্ট নৃত্যশিল্পী ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শর্মিলা বন্দোপাধ্যায়, ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. সিকদার মনোয়ার মুর্শেদ, রিভাইভাল টি-এর ব্যাবস্থাপনা পরিচালক রাহাতুল আশেকিন এবং সাংস্কৃতিক সংসদের সভাপতি সাদিয়া আশরাফী থিজবী ও সাধারণ সম্পাদক জয় দাস বক্তব্য রাখেন। ।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ বলেন, বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গল্প, কবিতা ও উপন্যাস থেকে আমরা নানাভাবে বর্ষা ঋতুর রূপ, বৈচিত্র ও সৌন্দর্য অনুধাবন করতে পারি। তিনি বলেন, অসাম্প্রদায়িক মূল্যবোধ চর্চায় এবং দেশ ও সমাজে সম্প্রীতি বজায় রাখতে সংস্কৃতিচর্চার গুরুত্ব অপরিসীম। আবহামান বাংলার হাজার বছরের সংস্কৃতিকে সামনে এগিয়ে নিয়ে সংস্কৃতিচর্চা আরও জোরদার করার জন্য তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক সংসদের সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানান।

 
  
%d bloggers like this: