প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

মন্দির ভিত্তিক বিবাহ প্রকল্পের প্রতিষ্ঠাতা ও বাগীশিক কেন্দ্রীয় সংসদের প্রধান উপদেষ্ঠা অ্যাডভোকেট তপন কান্তি দাশ বলেছেন- গীতা সনাতনী সমাজের দলিল স্বরূপ, যার মাধ্যমে এই সম্প্রদায় পরিচালিত হতে পারে। গীতা কেবলমাত্র ধর্মগ্রন্থ নয়, এটি সর্বশাস্ত্রময়ী উদার মানবতার জয়গানে মুখরিত মানববিজ্ঞান।

তিনি বলেন, একটি অসাম্প্রদায়িক, বৈষম্যহীন সমাজ বিনির্মাণে ধর্ম শিক্ষার গুরুত্ব অপরিসীম। তাই ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে স্ব-স্ব ধর্মীয় শিক্ষায় শিক্ষিত করে সমাজে শিষ্টাচার বজায় রাখতে হবে। গীতা শিক্ষার প্রচার প্রসার ও এর বাণী অনুধাবনের মাধ্যমে সমাজের নৈতিক অবক্ষয় রোধ করা সম্ভব।

তিনি শনিবার (১৪ মে) বিকেলে শহরের ১নং ওয়ার্ডস্থ দক্ষিণ কুতুবদিয়া পাড়াস্থ শ্রীশ্রী বিষ্ণু মন্দির প্রাঙ্গনে বাগীশিক কর্তৃক অনুমোদিত ভগবান শঙ্করাচার্য গীতা শিক্ষা নিকেতনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন।

কক্সবাজার পৌর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি তপন দাশের সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বেন্টু দাশ।

এতে প্রধান আলোচক ছিলেন-কক্সবাজার সদর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক বলরাম দাশ অনুপম। মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করেন জেলা মহিলা ঐক্য পরিষদের আহবায়ক দিপ্তী শর্মা।

বাংলাদেশ গীতা শিক্ষা কমিটি (বাগীশিক) কক্সবাজার জেলা সংসদের দপ্তর সম্পাদক জ্যোতি মল্লিক বাবুর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত উক্ত অনুষ্ঠানে বক্তব্যে রাখেন ও উপস্থিথ ছিলেন-বাগীশিক জেলা সংসদের শিক্ষা-সমাজ কল্যাণ সম্পাদক মৃদুল মল্লিক, পৌর পূজা উদযাপন পরিষদের সহ-সভাপতি সুজন শর্মা জন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক সুমন চৌধুরী বাবু, মহিলা সম্পাদিকা বাঁধন সরকার, মৃদুল কুমার নাথ, সুরঞ্জন দাশ, রুপন দাশ, লিপি ধর প্রমুখ।