পেকুয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কার্যালয়ের সহকারী প্রকৌশলী রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে চকরিয়া সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে।

বুধবার পেকুয়া উপজেলার শিলখালী ইউনিয়নের কাছারি মোরা এলাকার মোহাম্মদ হোছাইনের ছেলে মনছুর আলম তাকে মারধর করে লাঞ্চিত করার অভিযোগে এ মামলাটি দায়ের করেছেন।

মনছুর আলম জানান, তার এলাকার নুরুল কবির কর্মসৃজন প্রকল্পের হত দরিদ্র শ্রমিক। তিনি ওই প্রকল্পে কিছুদিন কাজ করার পর মারা যান। প্রকল্পের বাকী কাজ তার বাক প্রতিবন্ধী ছেলে মোহাম্মদ আব্দুর রহমান করে দেন। কাজ অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট দপ্তরে মাষ্টার রোল পুরন করে পাঠানো হয়। শিলখালী ইউনিয়নের কর্মসৃজন শ্রমিকরা রমজানের আগেই তাদের কাজের টাকা পেয়ে যান। কিন্তু মৃত নুরুল কবিরের ছেলে আব্দুর রহমান তার বাবার অসাপ্ত কাজ করে দেওয়ার পরও কোন টাকা পায়নি। এনিয়ে তিনি প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে অনেক বার গিয়েও কোন সদউত্তর পাননি। শেষ পর্যন্ত তিনি পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওই অভিযোগটি দেখার জন্য উপজেলা কর্মকর্তাকে লিখে দেন। বাক প্রতিবন্ধী আব্দুর রহমান এরপরও কোন প্রতিকার না পাওয়ায় গত ৮ মে তার একই এলাকার মনছুর আলম নামের তার এক আত্মীয়কে সাথে নিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়ে যান। সেখানে মন্ছুর আলম ও আব্দুর রহমান তার বাবার ও তার কাজের টাকা না পাওয়ার বিষয়টি জানতে চাইলে ওই কার্যালয়ে কর্মরত সহকারী প্রকৌশলী রবিউল ইসরাম ক্ষেপে গিয়ে মনছুর আলমকে শারিরিক ভাবে লাঞ্চিত করে মোবাইল সেটটি কেড়ে নিয়ে কার্যালয় থেকে বের করে দেন।

এ ঘটনায় মনছুর আলম আদালতে মামলা করলে বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে পেকুয়া থানার অফিসার ইনচার্জকে তদন্তের দায়ীত্ব দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে পেকুয়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কার্যালয়ের সহকারী প্রকৌশলী রবিউল ইসলামের কাছ থেকে জানতে চাইলে তিনি মনছুর আলমকে লাঞ্চিত করার ঘটনা অস্বীকার করেছেন।