এস.এম. তারেক:

ঈদগাঁও উপজেলার জালালাবাদ ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের পূর্ব ফরাজীপাড়া গ্রামে ৭ বসতবাড়ী আগুনে পুড়ে ভস্মীভূত হয়েছে। রোববার ( ৮ মে) বেলা আড়াইটায় জালালাবাদ ফরাজীপাড়া সড়কের মনজুর মৌলভীর দোকান পয়েন্টের দক্ষিণে এ অগ্নিকান্ড সংগঠিত হয়। আগুনে পুড়ে গেছে মূল্যবান জিনিসপত্র এবং নগদ টাকা পয়সা।

মৃত কবির আহমদের ঘরের চুলার আগুন থেকে আগুনের সূত্রপাত বলে ওয়ার্ড মেম্বার নুরুল আলম ও স্থানীয়রা জানিয়েছে।

আগুনে উল্লেখিত এলাকার মৃত আবদুল গনির পুত্র কবির আহমদ মৃত আবু শামার পুত্র আবুবকর, শামশুল আলমের পুত্র সাইফুল ইসলাম, কবির আহমদের পুত্র নুরুল হুদা এবং মৃত আবদুছ ছোবহানের পুত্র আলী আহমদের বাড়ী আগুনে পুড়ে সম্পূর্ণরুপে ভস্মীভূত হয়েছে।

আংশিকভাবে ভস্মীভূত হয়েছে বিধবা জোছনা আক্তার এবং নজির আহমদের পুত্র শাহজাহানের বাড়ী। স্থানীয় সংবাদকর্মী আতিকুর রহমান মানিক জানান, আগুন লাগার সাথে সাথে সজোরে প্রবাহমান উত্তরা বাতাসের কারনে মাত্র ১০ মিনিটের মধ্যেই বাড়ীগুলো আগুনে পুড়ে ভস্মীভূত হয়। তিনি জানান, স্থানীয়দের সহায়তায় প্রাথমিকভাবে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনা সম্ভব হয়।

সংবাদ পেয়ে ঘটনার কিছুক্ষণের মধ্যেই রামু থেকে দমকল বাহিনীর একটি দল ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছে এবং আগুন নেভানোর কাজ শুরু করে। রামু দমকল বাহিনীর স্টেশন অফিসার সোমেন বড়ুয়া জানান, বর্তমানে আমরা আগুন নির্বাপনের কাজে আছি। নির্বাপন কাজ শেষে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিরুপন করা হবে। ক্ষতিগ্রস্ত এবং স্থানীয়রাদের মতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান আনুমানিক ৮০ লক্ষাধিক টাকার মত হবে। ক্ষতিগ্রস্তরা বর্তমানে খোলা আকাশের নীচে বসবাস করছে।

জালালাবাদের ইউপি চেয়ারম্যান ইমরুল হাসান রাশেদ ঘটনাস্থলে উপস্থিত থেকে আগুন নেভানোর কাজ তদারকি করছিলেন। তিনি জানান, ক্ষতিগ্রস্থদের পুূণবার্সনে জরুরী পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে। আগুন লাগার বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে বলেও তিনি জানান। অগ্নিকান্ডের কারনে এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত জালালাবাদ ফরাজীপাড়া সড়কে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ ছিল।