চট্টগ্রাম, ৬ এপ্রিল, ২০২২

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

বন্দরনগরীর সর্ববৃহৎ হাসপাতাল, এভারকেয়ার হসপিটাল চট্টগ্রামে সম্প্রতি জটিল মোটর নিউরন ডিজিজ বা ‘এমএনডি’ রোগে আক্রান্ত রোগীর শরীরে সফলভাবে পিইজি টিউব স্থাপন সম্পন্ন হয়েছে। এভারকেয়ার হসপিটাল চট্টগ্রাম-এর গ্যাস্ট্রোএন্ট্রোলজি বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. এস এম আলী হায়দার’র তত্ত্বাবধায়নে চট্টগ্রামে প্রথমবারের মত এই পিইজি টিউব স্থাপন সম্পন্ন হয়েছে।

জেলার চাঁদগাও আবাসিকের ৬৬ বছর বয়সী হারুন-অর-রশিদ শারীরিক দুর্বলতা নিয়ে এভারকেয়ারে আসেন। হাসপাতালের ওপিডি’তে প্রাথমিক পর্যবেক্ষণের পর জানা যায়, বিগত ছয় মাস যাবত রোগী ঠিকমতো কথা বলতে ও খাবার/পানীয় গিলতে পারছেন না এবং হঠাৎ হঠাৎ শ্বাসকষ্টে ভুগছেন। এভারকেয়ার হসপিটাল চট্টগ্রামের নিউরোলজি বিভাগের কনসালটেন্ট ডাঃ মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন এর তত্ত্বাবধানে পরবর্তীতে যাবতীয় পরীক্ষানিরীক্ষার পর রোগী মোটর নিউরন ডিজিজ’এ (এমএনডি) আক্রান্ত হয়েছেন বলে ডাক্তাররা নিশ্চিত হন। এই রোগের নির্দিষ্ট কোন চিকিৎসা ও প্রতিষেধক না থাকায় রোগীর খাদ্য গ্রহণ ও পর্যাপ্ত পুষ্টি নিশ্চিত করতে পিইজি টিউব স্থাপনের জন্য সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। অতঃপর এভারকেয়ার হসপিটাল চট্টগ্রাম-এর গ্যাস্ট্রোএন্ট্রোলজি বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. এস এম আলী হায়দার’র তত্ত্বাবধায়নে এবং রোগী ও স্বজনদের সম্মতিক্রমে রোগীর শরীরে কোন জটিলতা ছাড়াই সফলভাবে একটি পিইজি টিউব স্থাপন করা হয়।

রোগ ও চিকিৎসা সম্পর্কে এভারকেয়ার হসপিটাল চট্টগ্রাম-এর গ্যাস্ট্রোএন্ট্রোলজি বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. এস এম আলী হায়দার জানান, “মোটর নিউরন ডিজিজ’র অন্যতম উপসর্গ হলো; খাবার গিলতে ও কথা বলতে কষ্ট হওয়া, মুখ থেকে লালা নিঃসৃত হওয়া এবং শ্বাসকষ্ট হওয়া। জনাব হারুন অর রশিদ বিগত ৬ মাস ধরে এসব সমস্যায় ভুগছেন এবং যখন আমাদের কাছে আনা হয়, তার শারীরিক অবস্থা জটিল ছিল। এই রোগের কোন চিকিৎসা এখনও আবিষ্কৃত হয়নি, নির্দিষ্ট কোন ঔষধও নেই। এমতাবস্থায় যেকোন সিদ্ধান্ত গ্রহণই কঠিন। তবে আমরা তার শরীরে পিইজি টিউব স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেই, কারণ এটি শরীরে পর্যাপ্ত পুষ্টি সরবরাহে সক্ষম এবং কোন মেডিকেল এক্সপার্ট ছাড়াই ব্যবহার করা যায়। এটি ন্যাসোগ্যাস্ট্রিক ও অরোগ্যাসট্রিক টিউবের তুলনায় বেশি সহনশীল, সহজ এবং দীর্ঘদিন ব্যবহারযোগ্য। অতঃপর সকলের সম্মতিক্রমে আমরা এই চিকিৎসা সম্পন্ন করি। বর্তমানে রোগী সুস্থ আছেন।”

এভারকেয়ার হসপিটাল চট্টগ্রাম-এর মেডিকেল সার্ভিসেস ডিপার্টমেন্টের মহাব্যবস্থাপক ডা. ফজলে আকবর বলেন, “রোগীদের সর্বোত্তম সেবা দানের লক্ষ্যে এভারকেয়ার হসপিটাল চট্টগ্রাম-এ আমরা সর্বোত্তম চিকিৎসা সরঞ্জাম ও দক্ষ চিকিৎসক দল নিয়ে সর্বদা প্রস্তুত থাকি। চট্টগ্রামে প্রথমবারের মত জটিল এমএনডি রোগে আক্রান্ত রোগীর শরীরে সফলভাবে পিইজি টিউব স্থাপন সম্পন্ন করেছি আমরা যা আমাদের জন্য অত্যন্ত বড় একটি সাফল্য।”

PEG tube installed to treat an MND patient for the first time in Chattogram

[Chattogram, April 6, 2022]- Evercare Hospital Chattogram, the largest hospital in the port city, has recently successfully installed PEG tube in a patient with complex motor neuron disease or MND for the first time in chattogram under the supervision of Dr. SM Ali Haider, Senior Consultant of Gastroenterology Department of Evercare Hospital Chattogram.

Harun-ur-Rashid, a 66-year-old resident of Chandgaon in the district, came to Evercare with physical weakness. Preliminary observations at the hospital’s OPD revealed that for the past six months, the patient has been unable to speak properly and swallow food/drink and has been suffering from sudden shortness of breath. Under the supervision of Dr. Mohammad Nazim Uddin, Consultant, Department of Neurology, Evercare Hospital, Chattogram, all the necessary tests were done and the doctors confirmed that the patient had contracted motor neuron disease (MND). As there is no specific treatment or antidote for this disease, PEG tubes are inserted to ensure adequate nutrition for the patient. Then with the consent of the patient and his relatives a PEG tube was successfully implanted in the patient’s body without any complications under the supervision of Dr. SM Ali Haider, Senior Consultant of Gastroenterology Department of Evercare Hospital Chattogram.

About the disease and its treatments, Dr. SM Ali Haider, Senior Consultant of Gastroenterology Department of Evercare Hospital Chattogram said “one of the main symptoms of motor neuron disease are; Difficulty in swallowing food and talking, salivation from the mouth, and shortness of breath. Mr. Harun-ur-Rashid has been suffering from these problems for the last 6 months and when he was brought to us, his physical condition was critical. No cure for this disease has yet been discovered, nor is there any specific medicine. It is difficult to make any decision in this situation. However, we decided to place a PEG tube in his body as it is capable of providing adequate nutrition to the body and can be used without any medical expert. It is more tolerant, simpler, and more usable than nasogastric and orogastric tubes. Then with the consent of all, we completed this treatment. At present the patient is healthy.”

Dr Mohammad Fazle-Akbar Chowdhury, general manager, Evercare Hospital Chattogram said, “At Evercare Hospital Chattogram we are always ready with the best medical equipment and skilled medical team to provide the best services to the patients. For the first time in Chattogram, we have successfully installed a PEG tube in the body of a patient suffering from a complex MND disease, which is a great achievement for us.”

 
  
%d bloggers like this: