এস.এম জুবাইদ,পেকুয়া:

কক্সবাজারের চকরিয়ার মাতামুহুরী নদীর পেকুয়ার বাঘগুজারা পয়েন্টে নির্মিত রাবার ড্যামের একটি স্প্যানের রাবারের ব্যাগ ছিঁড়ে গেছে। এতে বোরো মৌসুমের জন্য রাবার ড্যামের উপরের দিকে আটকে রাখা মিঠা পানি সমুদ্রের দিকে নেমে যাচ্ছে। ফলে সমুদ্রের লবণাক্ত পানি ঢুকে চকরিয়া-পেকুয়ার বিস্তীর্ণ এলাকায় চাষ করা বোরো ধানের ক্ষতির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

সোমবার (৪ এপ্রিল) ভোরে সামুদ্রিক জোয়ারের সময় এ রাবার ড্যামের ২ নম্বর স্প্যানের একটি অংশের রাবার ছিঁড়ে যায়। জোয়ারের পানিতে এমনটা হয়েছে বলে ধারণা করছেন রাবার ড্যামের কেয়ারটেকার আবদুর রহিম।

কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, ২০১২ সালে মাতামুহুরী নদীর মিঠা পানি আটকে শুষ্ক মৌসুমে বোরো চাষের জন্য নদী সংলগ্ন চকরিয়ার পালাকাটা, পেকুয়ার বাঘগুজারা ও ভোলা খালে তিনটি রাবার ড্যাম নির্মাণ করা হয়। রাবার ড্যামগুলো নির্মাণ করার মাধ্যমে প্রতিবছর শুষ্ক মৌসুমে চকরিয়া-পেকুয়ায় প্রায় ৬০ হাজার একর জমিতে ইরি, বোরো ও রবি শষ্যের চাষ হয়ে আসছে।

ইরি, বোরো চাষ শেষে প্রতি বছরের মে মাসের শুরু দিকে রাবার ড্যামগুলোর রাবার ব্যাগ আবার নামিয়ে দিয়ে মাতামুহুরী নদীর পানি চলাচল স্বাভাবিক করা হয়। কিন্তু চলতি মৌসুমে বোরো চাষে পানি সেচের প্রয়োজনীয়তা আরো প্রায় এক মাস রয়ে গেছে। এ অবস্থায় সোমবার ভোরে পেকুয়ার বাঘগুজারা রাবার ড্যামটির ২ নম্বর স্প্যানের রাবার ছিঁড়ে গিয়ে নদীর উপরের দিকে আটকানো মিঠাপানি বের হয়ে যাচ্ছে।

এলাকাবাসী জানান, রাবার ড্যামের ওপারের দিকে বালি তোলার কাজে ব্যবহৃত কয়েকটি ড্রেজার আটকিয়ে আছে। রাবার ড্যাম নামিয়ে দিয়ে আটকিয়ে পড়া ওই ড্রেজারগুলো বের করে নেওয়ার জন্য ড্রেজার মালিকরা বেশ কিছুদিন ধরে তদবির চালিয়ে আসছেন। এলাকাবাসীর মতে পানির চাপে নয় এমনও হতে পারে স্বার্থন্বেষী মহল হয়তো রাবার ড্যাম ছিঁড়ে দিয়েছে যা তদন্ত করলে বেরিয়ে আসবে।

এ ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের শাখা কর্মকর্তা জামাল মোরশেদ বলেন, ড্যামের ২ নম্বর স্প্যানের ব্যাগের উপরের ছিঁড়ে যাওয়া অংশ মেরামত করার জন্য জরুরী ভিত্তিতে উদ্যোগ নেয়া হবে। ড্রেজার পার করতে কোন ছিঁড়ে গেছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি তদন্ত করে দেখবেন বলে জানান।

 
  
%d bloggers like this: