এস.এম.জুবাইদ,পেকুয়া:

কক্সবাজারের পেকুয়ায় এক উপসহকারী প্রকৌশলীকে মারধরের ঘটনায় রাজাখালী ইউপির চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুলের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়েছে।

২৮ মার্চ (সোমবার) দুপুরে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের পেকুয়া উপজেলা প্রকৌশলী মোহাম্মদ লুৎফর রহমান বাদী হয়ে সরকারি কর্মচারীকে সরকারী কর্তব্যরত কাজে বাধা প্রদান ও মারধরের অভিযোগে এ মামলাটি দায়ের করেন। ওই মামলায় নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুলসহ অজ্ঞাতনামা ১০-১৫ জনকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানাযায়, গত ২৭ মার্চ রোববার দুপুরে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর পেকুয়া উপজেলা কার্যালয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল আলীম রাজাখালী ইউনিয়নের দশের ঘোনা এলাকায় প্রকল্প পরিদর্শন করতে যান। এ সময় পূর্বপরিকল্পিতভাবে সন্ত্রাসী দলবল নিয়ে উপস্থিত হন ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুল। সেখানে সরকারি কাজে বাধা দিলে উপসহকারী প্রকৌশলী আব্দুল আলিম প্রতিবাদ করেন। এতে চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুল তাঁর শার্টের কলার টানাহেঁচড়া করে লাথি, কিলঘুষি মেরে মাটিতে ফেলে দেন। এ সময় চেয়ারম্যানের সঙ্গে থাকা অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিরা উপসহকারী প্রকৌশলীকে লোহার রড ও লাঠি দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্য শরীরে বিভিন্ন স্থানে মারাত্মকভাবে আঘাত করেন। বেশি মারধর করলে প্রাণে রক্ষার্থে উপসহকারী প্রকৌশলী পালিয়ে পার্শ্ববর্তী একটি ঘরে অবস্থান নেন।

এদিকে মামলা হওয়ার পরপরই চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুল গ্রেপ্তার এড়াতে আত্মগোপনে চলে গেছেন। অপর দিকে মামলা হওয়ার বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে এ ঘটনার সুষ্ঠ তদন্তসহ মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল করে স্থানীয়রা। সূত্রে জানায়, রাজাখালী ইউপির চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সিকদার বাবুল প্রথমবার চেয়ারম্যান থাকাকালে তথকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মীর শওকত হোছাইনের সাথে এধরণের ঘটনা ঘটিয়ে ছিল।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী মোহাম্মদ লুৎফর রহমান বলেন, ঘটনাস্থল থেকে আমাকে মোবাইলে বিষয়টি অবহিত করলে আমি জেলা নির্বাহী প্রকৌশলীকে অবগত করি। তিনি কক্সবাজারের পুলিশ সুপারের মাধ্যমে পুলিশি সহায়তায় আহত আব্দুল আলিমকে উদ্ধার করেন। পরে তাঁকে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়। তিনি আরো জানান আমাদের উধর্বতন কর্তৃপক্ষের নিদের্শে সরকারী কাজে বাধা প্রদান এবং মারধরের ঘটনায় পেকুয়া থানায় তিনি বাদী হয়ে চেয়ারম্যানসহ অজ্ঞাত ১০-১৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করার সত্যতা জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে পেকুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ আলী মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আসামিদের ধরতে পুলিশ সম্ভাব্য স্থানে অভিযান চালাচ্ছে।

 
  
%d bloggers like this: