জিয়াউল হক জিয়া,চকরিয়াঃ

কক্সবাজারের চকরিয়ায় বেসরকারি ব্র্যাক সংস্হার উদ্যোগে”চাকরি প্রদান সংক্রান্ত কর্মশালা” অনুষ্ঠান সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।
সোমবার (২৮ মার্চ) সকাল ১০টার দিকে সিস্টেম চকরিয়া কমপ্লেক্সের এরিস্টোন ডাইন রেষ্টুরেন্টের কনভেনশন হলরুমে কর্মশালাটি অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত সভায় কক্সবাজার জেলার ব্র্যাক দক্ষতা উন্নয়ন কর্মসূচী প্রকল্পের রিজিয়নাল ম্যানেজার খাদিজা রওনক এর সভাপতিত্বে,এলাকা ব্যবস্হাপক রতন কুমার দাশের সঞ্চালনায়,প্রধান অতিথি ছিলেন,চকরিয়া-পেকুয়া আসনের এমপি আলহাজ্ব জাফর আলম।এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন,চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) জেপি দেওয়ান।
তিনি বলেন,অবহেলিত গ্রামীণ জনপদে ঝরে পড়া কোমলমতি শিক্ষার্থী ও প্রতিবন্ধিদের খোঁজে-খোঁজে বের করে,ব্র্যাক সংস্থা নিজ উদ্যোগে,নিজ খরচে ৬মাস মেয়াদী হাতকড়িঁ বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ করে গড়ে তুলার জন্য ব্র্যাক কর্তৃপক্ষের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি।সরকার দেশটিকে উন্নয়ত করতে ২০০৮সাল থেকে নানান উদ্যোগ হাতে নিয়ে কাজ করছেন।যা দেশের বিভিন্ন পর্যায়ের ১৪টি বছরে চলমান উন্নয়ন তা প্রমাণ করে।তারই ধারাবাহিতায় ব্র্যাক দেশের যোগউপযোগী সময়ে এসে বেকারত্ব কিশোর/কিশোরীদের হাতকড়িঁ বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ শ্রমিক হিসেবে গড়ে তুলে বেকারত্ব নিরসনে গুরুত্বর ভূমিকা রাখছেন।যে প্রতিষ্ঠান প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত দক্ষ শ্রমিক খোঁজছেন।সে সমস্ত প্রতিষ্ঠানে যেন প্রশিক্ষিত শিক্ষার্থীদের চুক্তিভিত্তিক চাকরি হয়।সে দিকে সুনজর রাখার জন্য সংস্হাটির কর্তৃপক্ষের প্রতি নির্দেশ দেন।ভবিষৎতে যেন চাকরি নামে কোন প্রতিষ্ঠান থেকে তারা প্রতারিত না হয়।এছাড়াও প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের মধ্যে যারা অতিব পরিশ্রমি,উদ্যমী,সাহসী,নিজেই উদ্যোক্তা হিসেবে পজিশন অনুপাতে ব্যবসা করতে পারবেন।তাদেরকে ব্র্যাকের পক্ষ থেকে ঋণ দিয়ে সহযোগিতা করার অনুরোধ জানান।

সভাপতির বক্তব্যে খাদিজা রওনক বলেন,১৯৭২সালে এই দেশে ঋণদান সংস্থা হিসেবে যাত্রা শুরু করেন,ফজলে হাসান আবেদ মহোদয়ের প্রতিষ্ঠান “ব্র্যাক”।মহোদয়ের উক্তি হল-যার প্রয়োজন বেশী,সর্বপ্রথম তার দিকে হাত বাড়াঁও,সহযোগিতা কর!তারই ধারাবাহিকতায় অদ্যবদি সময় পর্যন্ত ব্র্যাক সুনামের সাথে সমগ্র দেশে আর্থিক র্দূবল ব্যক্তিদেরকে সহযোগিতা দিয়ে আসছেন।তাছাড়া ব্র্যাক নামের প্রতিষ্ঠানে আমাদের মত সারাদেশের শিক্ষিত বেকার লক্ষ মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে।দেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটের দিকে তাকিয়ে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক চিন্তা করলেন।পরিবারে বোঝা, ঝরে পড়া শিক্ষার্থী ও প্রতিবন্ধিদেরকে বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ করে গড়া তুলার প্রত্যয়ে “দক্ষতা উন্নয়ন কর্মসূচী”প্রকল্প ২০১২সালে চালু করেন।এই প্রকল্পের আলোকে চকরিয়া উপজেলার ডুলাহাজারা,বদরখালী ও হারবাং ইউনিয়ন থেকে ৩৫জন উদ্যমী শিক্ষার্থী নিয়েছি।পরে তাদেরকে গ্রাফিক্স ডিজাইন,আইটি সার্পোট টেকনিশিয়ান,টেইলারিং এন্ড ড্রেসমেকিং,মোবাইল ফোন সার্ভিসিং ও বিউটি সেলুন ফিমেল বিষয়ে ৬মাস মেয়াদী কোচের মাধ্যমে দক্ষ শ্রমিক হিসেবে গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছি।প্রশিক্ষণের জন্য ব্র্যাক কর্তৃপক্ষ অভিজ্ঞ ৩৫টি প্রশিক্ষক বাচাঁয় করেন।তাদের দিয়ে শিক্ষার্থীদেরকে হাতকড়িঁ প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।তবে মনিটরিং করতে ব্র্যাক প্রতিষ্ঠানের পক্ষে আমরা ছিলাম।ব্র্যাক প্রতিটি শিক্ষার্থীর জন্য প্রতিমাসে প্রশিক্ষণ ভাতা ১হাজার আর যাতায়াত ভাতা ৮শত টাকা হিসেবে নিঃস্বার্থে দিয়েছেন।উদ্দেশ্য কেবল একটাই,দেশের বেকারত্ব র্দূবিভূতকরণে অবদান রেখে,ব্র্যাক নামটি উপকারী মানুষের মনে অমরত্ব রাখা।যতদিন ব্র্যাক দক্ষতা উন্নয়ন কর্মসূচী চালু রাখবেন।ততদিন আমরা দক্ষ শ্রমিক গড়ে তুলতে,এই ধরণের প্রশিক্ষণ কোচ চালু রাখব বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এসময় কক্সবাজার জেলার দক্ষতা উন্নয়ন কর্মসূচীর এলাকা ব্যবস্হাপক অফিসার আহসান উল্লাহ খান,সিঃফিল্ড টেকনিশিয়ান অফিসার দীপক কুমার অধিকারী,জেলার এলাকা ব্যবস্হাপক রওশন আরা খাতুন,তনুজ কুমার হালদার ও ফরহাদ হোসেন সহ বিভিন্ন অফিসে কর্মরত অফিসারগণ উপস্হিত ছিলেন।

 
  
%d bloggers like this: