নিজস্ব প্রতিবেদক :
ব্যাপক আয়োজনে টেকনাফ উপজেলার ঐতিহ্যবাহী শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ রঙ্গিখালী ফাজিল (ডিগ্রী) মাদ্রাসার সহকারী অধ্যাপক (আরবি) মাওলানা শফিকুর রহমান এর অবসর জনিত বিদায় সংবর্ধনা ও বনভোজন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মাদ্রাসার প্রাক্তন ছাত্রবৃন্দের ব্যানারে শনিবার (১৯ মার্চ) দুপুর ২টায় নাইক্ষ্যংছড়ি পাহাড়িকা পার্কে উক্ত অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
প্রাক্তন ছাত্র মামুনুর রশীদ নূরীর কোরআন তেলোয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া অনুষ্টানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন-প্রাক্তন ছাত্র সরওয়ার কামাল সিকদার। নুরুন্নবী মাসুমের পরিচালনায় সংবর্ধনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, রঙিখালী মাদ্রাসার সাবেক শিক্ষক হোয়াইক্যং ইউনিয়ন পরিষদের চার চার বার নির্বাচিত চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মাওলানা নুর আহমদ আনোয়ারী।
বিশেষ অতিথি ছিলেন, চকরিয়া শাহারবিল আনোয়ারুল উলুম কামিল (মাস্টার্স) মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ রঙিখালী মাদ্রাসার সাবেক সিনিয়র আরবি প্রভাষক মাওলানা শফিউল হক জিহাদী,
প্রাক্তন ছাত্র ও শিক্ষক বর্তমানে কেরানীহাট জামেউল উলুম ফাজিল (ডিগ্রি) মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ বিশিষ্ট গবেষক ও সাহিত্যিক মাওলানা মফিজুর রহমান মাদানী, প্রাক্তন ছাত্র বদরখালী এম.এস ফাজিল (ডিগ্রী) মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা সাঈদ আহমদ তারেক, প্রাক্তন ছাত্র ও রঙ্গিখালী ফাজিল (ডিগ্রী) মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক মাও. ফোরকান আহমদ।
প্রাক্তন ছাত্রদের মধ্যে স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখেন, ইসলামী ব্যাংক কোর্টবাজার শাখার অপারেশন ম্যানেজার আব্দুস শাকুর, সাংবাদিক ইউনিয়ন কক্সবাজার এর কোষাধ্যক্ষ ও দৈনিক হিমছড়ির চীফ রিপোর্টার ছৈয়দ আলম, খুরুশকুল দাখিল মাদ্রাসার সুপার মোহাম্মদ ইসমাইল, টেকনাফ সাউথিস্ট ব্যাংকের অফিসার শফিকুল আলম বকুল।
অনুষ্ঠান শুরুতে সংবর্ধিত অতিথি ও প্রধান অতিথি এবং বিশেষ অতিথিবৃন্দদের প্রাক্তন ছাত্রদের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে বরণ এবং সম্মাননা স্বারক ক্রেস্ট ও বিভিন্ন উপহার সামগ্রী দেওয়া হয়।
প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিবৃন্দ বক্তব্যে হুজুরের সৃতিচারণ করেন এবং হুজুরের সু-স্বাস্থ্য কামনা করেন।
বিদায় সংবর্ধনা ও বনভোজনে অংশ গ্রহণকারী সকল প্রাক্তন ছাত্রদেরকে পুরুষ্কার দেওয়া হয়।
অনুষ্টানে সার্বিক সহযোগিতা ও আয়োজনে অংশ নেন-মাওলানা জামাল হোছাইন, মাষ্টার রশিদুল হক,
জাবের আহমদ সিকদার, দেলোয়ার হোছাইন রাজু, নুরুল আলম ও মোকতার হোসাইন সোহেল।
অনুষ্টানে বক্তারা বলেন, মাওলানা শফিকুর রহমান হুজুর দীর্ঘ ৩৮ বছর শিক্ষক হিসেবে সততা ও নিষ্ঠার সহিত শিক্ষকতা করে মাদ্রাসাকে উজ্জ্বল করেছেন। তার হাতে গড়া বহু শিক্ষার্থী দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজে সুনামের সহিত লেখাপড়া ও শিক্ষকতা করছেন। হয়েছেন শিক্ষক, সাংবাদিক, আইনজীবি, ব্যাংকার। বক্তারা বিদায়ী শিক্ষক শফিকুর রহমানের দীর্ঘ কর্মময় জীবন তুলে ধরে স্মৃতিচারন করেন।
অস্রু সিক্ত বিদায় বক্তব্যে মাও : শফিকুর রহমান বলেন, “আমি দীর্ঘ দিন এই প্রতিষ্টানে শিক্ষকতার মহান পেশায় নিয়োজিত ছিলাম, জীবনের সব সুখ আহলাদ বিসর্জন দিয়ে এই ডক্টর গাজি কামরুল ইসলাম প্রকাশ জঙ্গলী হুজুরের প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসায় অনবদ্য ভূমিকা রেখেছি। আমার ছাত্র-ছাত্রীরা আজ দেশের সুনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করছে, শিক্ষকতা করছে। অনেকে উচ্চ পর্যায়ে সুনামের সহিত কাজ করছেন।
দীর্ঘ কর্মজীবনে যদি কোন ভুলত্রুটির জন্য সকলের কাছে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখার আহবান জানান এবং সবসময় দোয়া কামনা করেন। তিনি উপস্থিত প্রাক্তন ও বর্তমান ছাত্রদের লেখাপড়ার মাধ্যমে নৈতিক শিক্ষা অর্জনে সুন্দর ভবিষ্যত গড়ার আহবান জানান।