সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. জাকির হোসেন বলেছেন-সমাজকে আলোকিত করতে পাঠাগারের ভূমিকা অনেক ব্যাপক। একটি পাঠাগার, একটি বিশ্বদ্যালয়ের মত। তাই জ্ঞানের আন্দোলন ছড়িয়ে দিতে পাড়া-মহল্লায়, শহরে-নগরে পাঠাগার গড়ে তোলা অত্যন্ত যুগান্তকারী পদক্ষেপ। পাঠাগারের মাধ্যমে শ্রেণি-পেশা ও বয়স নির্বিশেষে সর্বস্তরের মানুষের মাঝে পাঠাভ্যাস গড়ে তুলে জ্ঞান চর্চার ধারাকে বিকশিত করতে হবে। তিনি বলেন, পাঠাগারে সংগৃহীত বই পড়ে অর্জিত জ্ঞানের আলো অন্যদের মাঝেও বিতরণে আলোচনারও অনেক গুরুত্ব রয়েছে। তাই পাঠকদেরকে আলোচক হিসেবেও গড়ে তুলতে পাঠাগারের পক্ষ থেকে গঠনমূলক উদ্যোগ গ্রহন করতে হবে।
গত বৃহস্পতিবার (১৭ মার্চ) কক্সবাজারের রামু উপজেলার রাজারকুল ইউনিয়নের সিকদারপাড়ায় মাস্টার কলিম উল্লাহ গণপাঠাগারের বর্ষপূর্তি উপলক্ষে কুইজ প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
এসময় তিনি প্রতিষ্ঠার এক বছরের মধ্যেই জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে দিতে এ পাঠাগারের নানামুখী পদক্ষেপের প্রশংসা করেন।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্যে পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি, রাজারকুল আজিজুল উলুম মাদ্রাসার পরিচালক মাওলানা মোহছেন শরীফ যে আলোকিত ব্যক্তিত্বের নামে এ পাঠাগার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে সেই মরহুম মাস্টার কলিম উল্লাহর জ্ঞান চর্চা, কীর্তি ও অবদান তুলে ধরে সংক্ষিপ্ত আলোকপাত করেন। তিনি বলেন, এতদঞ্চলে জ্ঞানের আলো প্রজ্বলনে মাস্টার কলিম উল্লাহ অনেক আত্মত্যাগী ভূমিকা পালন করেছেন। গ্রামবাংলার অবহেলিত, অনগ্রসর পরিবারের সন্তানদেরকে শিক্ষার আওতায় আনার লক্ষ্যে তাঁর কৃতিত্বপূর্ণ অবদান অম্লান হয়ে থাকবে।
শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ মাওলানা হাবিবুল হক সিকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- রামু উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) রিগ্যান চাকমা, কক্সবাজার নাগরিক সোসাইটির সভাপতি আ.ন.ম হেলাল উদ্দিন, কক্সবাজার সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যাপক আ.ম আনোয়ারুল হক, রামু উপজেলা সমাজসেবা অফিসার আল মাহমুদ, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শহীদুল্লাহ সিকদার, সাংবাদিক সোয়েব সাঈদ, রামু লেখক ফোরামের সভাপতি হাফেজ মুহাম্মদ আবুল মঞ্জুর প্রমূখ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী তামিম আহসানের সঞ্চালনায় এ অনুষ্ঠানে অতিথিবৃন্দ পাঠাগারের প্রথম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত বই পড়া ও কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরস্কার বিতরণ করেন।
অনুষ্ঠান শেষে অতিরিক্ত সচিব মো. জাকির হোসেন মাস্টার কলিম উল্লাহ গণপাঠাগার পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি এলাকায় নারীদের জন্য পৃথক পাঠাগারসহ একাধিক পাঠাগার স্থাপনের উদ্যোগ নেয়ার আহবান জানিয়ে সার্বিক সহায়তার আশ্বাস দেন।

অনুষ্ঠানে এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ সর্বস্তরের জনসাধারণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে উপস্থিত ছিলেন।