জালাল আহমদ,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি:
বাংলাদেশ গণ অধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক মোহাম্মদ রাশেদ খাঁন বলেছেন, ক্লাস হাজিরা দিক আর না দিক, মধুর ক্যান্টিনে হাজিরা দিতেই হবে।
মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের কে হাজিরা না দিলে তাকে হলের রুম থেকে ধরে নিয়ে গেস্টরুম এনে শারীরিক এবং মানসিকভাবে নির্যাতন করা হয়। প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের কে গণরুমে মানবেতর জীবনযাপন করতে হয়‌। তাদেরকে মিছিল-মিটিংয়ে যেতে বাধ্য করা হয়।
অবিলম্বে গেস্টরুম এবং গণরুম সংস্কৃতি বিলুপ্ত করতে হবে।
অন্যায় -অনিয়ম এবং দুর্নীতির বিরুদ্ধে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সোচ্চার হতে হবে।

আজ ১৫ মার্চ মঙ্গলবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহাসিক বটতলায় বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার উদ্যোগে ডাকসু নির্বাচন সহ ৫ দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে আয়োজিত এক ছাত্র সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি বিন ইয়ামিন মোল্লা বলেন , বাংলাদেশের প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মেধাবী শিক্ষার্থীরা স্বপ্ন দেখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করার।আর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে‌ পড়তে এসে তারা ছাত্র হত্যা মামলার আসামি হয়।তার কারণ ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের লেজুড়বৃত্তিক রাজনীতি। আমরা গত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির নির্বাচনের দিন ডাকসু নির্বাচনের দাবিতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলাম। কিন্তু আমাদের কে প্রশাসন সরিয়ে দিয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন সব সময় ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের পক্ষ নিয়ে নির্বিকার ভূমিকা পালন করে।

সভাপতির বক্তব্যে ছাত্র অধিকার পরিষদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখার সভাপতি এবং ডাকসুর সাবেক সমাজসেবা বিষয়ক সম্পাদক আখতার হোসেন বলেছেন, যারা প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী তারা রিডিং রুমে পড়তে পারবে না। লাইব্রেরীতে পড়াশোনা করতে পারে না। তাদেরকে অনেকটা জিম্মি করে রেখেছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলের রুম গুলো ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের ওয়ার্ডের চেয়ে নিকৃষ্ট।
তিনি আরো বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময় আমাকে আড়াই মাস হলে থাকতে দেওয়া হয় নি।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক সমস্যা সমাধান হলে দেশের মানুষের অনেক সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।
বাংলাদেশে নিয়মিত জাতীয় নির্বাচন হয় নিয়ম রক্ষার নামে। কিন্তু ডাকসু নির্বাচন আটকে আছে।
ছাত্র অধিকার পরিষদের ঢাবি শাখার দফতর সম্পাদক সালেহ উদ্দিন সিফাত এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এই সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম আদিব, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সহ-সভাপতি আসিফ মাহমুদ, ঢাকা কলেজের ছাত্র নাহিদ উদ্দিন তারেক প্রমুখ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি শাকিল আহমেদ , ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক আকরাম হোসেন, ইউসুফ আলী শাকিলসহ শতাধিক নেতাকর্মী ।

সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে শেষ হয়।

ছাত্র অধিকার পরিষদের ঢাবি শাখার নতুন কমিটি: বর্তমান সভাপতি আখতার হোসেনকে পুনরায় সভাপতি এবং বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আকরাম হোসেন কে পুনরায় সাধারণ সম্পাদক করে ৪৩ সদস্যের একটি নতুন কমিটি ঘোষণা করেন আখতার হোসেন নিজেই।