আন্তর্জাতিক ডেস্ক
ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় দোনেতস্ক অঞ্চলে ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ২০ জন সাধারণ মানুষ নিহত হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে রাশিয়া। হামলায় আরও ২৮ জন আহত হয়েছেন জানিয়ে মস্কোর দাবি, ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী এই হামলা করেছে।

তবে মস্কোর এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে কিয়েভ। সোমবার (১৪ মার্চ) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স ও সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

অবশ্য দোনেতস্কে হামলা বা হতাহতের বিষয়ে ইউক্রেনকে দোষারোপ করলেও রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় কোনো প্রমাণ সামনে আনেনি। তবে ইউক্রেন ওই হামলার দায় অস্বীকার করে দাবি করেছে, রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর নিক্ষেপ করা ক্ষেপণাস্ত্রে এসব মানুষ নিহত হয়েছেন। রয়টার্স স্বাধীনভাবে উভয় পক্ষের বিবৃতি যাচাই করতে পারেনি বলে জানিয়েছে বার্তাসংস্থাটি।

সোমবার রুশ গণমাধ্যম জানায়, ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর ক্ষেপণাস্ত্র দোনেতস্কের কেন্দ্রে আঘাত হানে এবং এতে ২০ জন নিহত ও আরও অনেকে আহত হন। এই ঘটনার জন্য কিয়েভকে যুদ্ধাপরাধের জন্য অভিযুক্ত করে দেশটি।

অপরদিকে রাশিয়ার এই অভিযোগের জবাবে ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় দাবি করে, হামলায় ব্যবহৃত মিসাইলটি ‘নিঃসন্দেহে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র’ ছিল।

টেলিভিশনে দেওয়া এক ভাষণে ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর মুখপাত্র লিওনিদ মাতিউখিন বলেন, এটি নিয়ে কথা বলেও কোনো লাভ নেই। একইসঙ্গে রাশিয়ার বিরুদ্ধে এই হামলাকে ‘প্রোপাগান্ডা’ হিসেবে ব্যবহার করার অভিযোগও সামনে আনে তিনি।

দোনেতস্ক মূলত রুশপন্থি বিদ্রোহী-নিয়ন্ত্রিত বিচ্ছিন্নতাবাদী এলাকাগুলোর একটি যেখানে ইউক্রেনীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে ২০১৪ সাল থেকে লড়াই চলছে।