বার্তা পরিবেশক:
বান্দরবনের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার একমাত্র সর্বোচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হাজী এম এ কামাল সরকারি কলেজে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের একাংশের হামলার ঘটনার প্রতিবাদে সোমবার (১৪ মার্চ) সকাল ১০ টায় মানববন্ধন করেছে ছাত্রলীগ অপরাংশের নেতা ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা।
কলেজ সূত্রে জানা যায়, গত ১৩ মার্চ সকালে ক্লাস চলা কালীন সময়ে কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইফতেখারউল আবরারের নেতৃত্বাধীন অংশের একটি মিছিলে অংশ গ্রহণ না করা ৫ জন সাধারণ ছাত্রদের মারধর করেন। তাদের মারধরে একাদশ শ্রেণী ছাত্রলীগ নেতা রাকিবুল ইসলাম ইমন, জিয়াউর রহমানসহ ৫ সাধারণ শিক্ষার্থী আহত ও কয়েকজন ছাত্রীকে লাঞ্চিত করা হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে কলেজে ক্যাম্পাসে উত্তেজনা বিরাজ করেছিল।

এর জের ধরে সোমবার কলেজের প্রধান ফটকে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে নবীন ও প্রবীণসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা সন্ত্রাসবিরোধী প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে ইফতেখারউল আবরারসহ ন্যাক্কারজনক এ হামলাকারী দোষীদের উপযুক্ত শাস্তি দাবি করেন। শিক্ষার্থীদের উপর হামলায় সময় কলেজ প্রশাসনের লোকজন উপস্থিত থাকলেও তারা নীরব ভূমিকা পালন করেছে বলে তাদের দাবী। কলেজ প্রশাসনের খামখেয়ালির করণে ছাত্রলীগ ঐ অংশের নেতারা শিক্ষার্থীদের উপর এই হামলা চালিয়েছে।

মানববন্ধনে সাধারণ শিক্ষার্থীরা নাইক্ষ্যংছড়ি কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর দিন দুপুরে সশস্ত্র হামলা ও নারী শিক্ষার্থীদের লাঞ্চনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। দোষীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে তাদের শাস্তি নিশ্চিত করতে প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান। এ ছাড়াও মানববন্ধনে নাইক্ষ্যংছড়ি হাজী এম এ কামাল সরকারি কলেজে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্ত মুলুক শাস্তির দাবী করেন। মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, ছাত্রলীগ নেতা দিদরুল আলম দিদার,মোঃ তারেকুল হাসান,হাসিবুল হক ইমন,সালাহউদ্দিন, মোবারক হোসেনসহ অনেকে। এ বিষয়ে কলেজের অধ্যক্ষ ও আ ম রফিকুল ইসলাম ও থানার অফিসার ইনচার্জ টান্টু সাহা ঘটানার সততা নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের বলেন সাধারণ ছাত্রদের দাবী মেনে নিয়ে আগামী কাল বসে দাবী পূরনের আশ্বস্ত করা হয়। আশা করি বসলেই সমাধান হয়ে যাবে।