সিবিএন:
অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোঃ রাশেদ খান হত্যাকান্ডের পর ক্রসফায়ার থেমে গেলে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে মাদক ব্যবসায়ীরা। এমনকি মামলার রায়ের পর প্রকাশ্যে উল্লাস প্রকাশ করেছে তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ীরা। অন্যদিকে তারা নির্বিঘ্নে মাদক পাচার করেছে।
কিন্তু এবার তাদের লাগাম টানার হুঁশিয়ারি দিলেন কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মোঃ হাসানুজ্জামান।
শনিবার (১২মার্চ) টেকনাফে পুলিশের এক অনুষ্ঠানে মাদক ব্যবসায়ীদের এলাকার ছাড়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন পুলিশ সুপার।
এসময় পুলিশ সুপার বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে কারো কোন তদবির চলবে না। কারো সুপারিশ শোনা হবে না। এবার নতুন করে আবার অভিযান শুরু করা হবে। মাদকের সঙ্গে জড়িতদের বলতে চাই, হয় মাদক ছাড়ো, না হয় টেকনাফ ছাড়ো। নতুবা কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পুলিশ সুপার আরো বলেন, মাদক ব্যবসা চলমান রাখার জন্য স্থানীয়ে কিছু লোক রোহিঙ্গাদের ক্যাম্পের বাইরে আশ্রয় দিয়েছে। যার কারনে মাদক প্রতিরোধ সম্ভব হচ্ছে না। তবে এসব রোহিঙ্গাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে। মাদক কারবারীদের আর ছাড় দেওয়া হবে না। সাধারণ সাথে নিয়েই আমরা কাজ করতে চাই। টেকনাফকে মাদক মুক্ত করে ছাড়বো। টেকনাফে কোন মাদক কারবারি স্থান হবে না।

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাে: হাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে থানা প্রাঙ্গনে আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন পুলিশ সুপার।
এতে আরো বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উখিয়া-টেকনাফ) সার্কেল শাকিল আহমেদ, টেকনাফ পৌর মেয়র হাজি মুহাম্মদ ইসলাম, টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল আলম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) মাস্টার জাহেদ হোসেন।
এতে সহসভাপতি এমএ জহির, টেকনাফ উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং এর সভাপতি মোহাম্মদ আলম বাহাদুর, হ্নীলা ইউপির চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী, বাহারছড়া ইউপি চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন খোকন, টেকনাফ পৌর কমিউনিটি পুলিশের সভাপতি সাইফুদ্দিন খালেদসহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, রাজনীতিবিদ, সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।